প্রচ্ছদ » খেলাধুলা » ভারতে নিজেদের প্রমান করতে ব্যাস্ত টাইগার পেসাররা

ভারতে নিজেদের প্রমান করতে ব্যাস্ত টাইগার পেসাররা

খেলাধুলা ডেস্কঃ ২০১৪ সালে জাতীয় দলের পেসারদের মধ্যমণি ছিলেন রুবেল, আল-আমিন হোসেন, তাসকিন আহমেদ, শফিউল ইসলাম কিন্তু ১৫-তে মুস্তাফিজের উত্থান, মাশরাফির ফিট থাকা, শহীদের আগমন সমীকরন পাল্টে দেয়। বাংলাদেশের পেস আক্রমণকে বিশ্বের দরবারে ‘মহাশক্তিধর’ হিসেবে স্থাপিত করা হয়। সম্প্রতি ‘এ’ দলের হয়ে ভারতে খেলতে গেছেন রুবেল, আল-আমিন, তাসকিনরা। মাশরাফি, মুস্তাফিজহীন প্রেস আক্রমণে তাদের ওপর নজর থাকবে আলাদাভাবে। মুমিনুল বাহিনীকে ভালো করতে হলে, রুবেলদের দায়িত্ব নিতে হবে অনেকখানি।

২০১৪ সালে, জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে আল-আমিন সর্বশেষ আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলেছেন। ওই বছর জাতীয় দলের সর্বাধিক উইকেট শিকারি ছিলেন তিনি। এরপর আচমকা হারিয়ে যান। বোলিং অ্যাকশন প্রশ্নবিদ্ধ হলেও কয়েক মাস বাদে ফিরে আসেন। বিশ্বকাপের দলে ডাকও পান। কিন্তু মাঠে নামা হয়নি। শৃঙ্খলা ভঙ্গের দায়ে তাকে দেশে ফিরিয়ে আনে বিসিবি। ভারত যাওয়ার আগে আল-আমিন বলে গেছেন, নির্বাচকদের মন জয় করার সর্বোচ্চ চেষ্টা করবেন।

শফিউল নির্বাচকদের নজরে থাকলেও ইনজুরি তাকে ছাড়ছে না। এ বছর একটা ম্যাচেও মাঠে নামতে পারেননি। সুইং করানোর দক্ষতার জন্য লংঙ্গার ভার্সনে শফিউল নির্বাচকদের কাছে বেশ পছন্দের। তিনিও আশায় আছেন, ভারতে নিজেকে প্রমাণ করে ফের জাতীয় দলে ফিরবেন।

 ওয়ানডেতে নিয়মিত হলেও শেষ চার টেস্টে খেলানো হয়নি রুবেলকে। পাকিস্তান, ভারত সিরিজে তার হালকা ইনজুরির সমস্যা ছিল। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে তাকে বিবেচনায় নেননি নির্বাচকরা। রুবেলও আশায় আছেন ভারতের ‘এ’ দলের বিপক্ষে ভাল করে বছরের শেষ সিরিজে সাদা পোশাক গায়ে চাপাবেন।

তাসকিনের ব্যাপারটা আবার অন্যরকম। তাকে খেলানো হচ্ছে সাবধানে। টেস্টে এখন পর্যন্ত তাকে মাঠে নামানোর ঝুঁকি নেননি নির্বাচকরা। ওয়ানডেতে হালকা ইনজুরি থাকলেই বিশ্রাম দেয়া হচ্ছে। বিসিবির কাছে তাসকিন ‘মূল্যবান সম্পদ’। তাই বিশ্বকাপের সর্বাধিক উইকেট শিকারিকে নিয়ে বিসিবি কর্তারা সাবধানী। লম্বাদেহি এই পেসারের লংঙ্গার ভার্সনের অভিজ্ঞতা নেই বললেই চলে। প্রথম শ্রেণীর ম্যাচ খেলেছেন মাত্র দশটি। সর্বশেষটি সেই ২০১৩ সালে। টেস্টের ধকল সামলানো তাসকিনের জন্য কঠিন হয়ে যাবে বলেই মনে করে বাংলাদেশের থিম ট্যাঙ্ক। তবে ইদানীং শোনা যাচ্ছে, তাসকিনকে টেস্টে নামিয়ে দেয়া হতে পারে। ভারত সফরে তিন দিনের ম্যাচে ভালো করলে, সেই ‘নামিয়ে দেয়াটা’ অজিদের বিপক্ষে হলে অবাক হওয়ার কিছু থাকবে না।

>
বাংলা ইনিশিয়েটরে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।