মাত্র দশ মিনিটেই নু কাম্পে লা পালমা ম্যাচে যে এতটা ক্ষতি হয়ে যাবে কল্পনার বাইরে ছিল বার্সেলোনা সমর্থকদের।
ডান উইং থেকে বক্সের মধ্যে কাট করে বল নিয়ে এগোতে গিয়ে লা পালমার ডিফেন্ডার পাবলো বিগাসের  সঙ্গে সংঘর্ষ। ম্যাচ শুরুর কিছুক্ষণের মধ্যেই। তার ধাক্কায় প্রায় দু’মাস মাঠের বাইরে চলে গেলেন লিওনেল মেসি। মাঠে সংঘর্ষের পর মাঠে হাঁটু চেপে বসে পড়েছিলেন বার্সেলোনার রাজপুত্র। প্রথমে মনে হয়েছিল মামুলি সংঘর্ষ। একটু পরেই হয়তো উঠে বসবেন তিনি। মেসি সে চেষ্টাই করেছিলেন। মাঠে কিছুক্ষণ থাকারও চেষ্টা করেন। কিন্তু একটু পরেই হাঁটতে গিয়ে প্রচণ্ড সমস্যায় পড়েন। যন্ত্রণা স্পষ্ট ধরা পড়ছিল আর্জেন্তিনার মহাতারকার মুখে। সঙ্গে সঙ্গে তাঁকে মাঠ থেকে তুলে নেওয়া হয়।

ছবি: এএফবি

ছবি: এএফবি

এর কিছুক্ষণের মধ্যেই কাতালান রেডিও জানায়, মেসির চোট গুরুতর। অন্তত সাত-আট সপ্তাহ মাঠে ফেরার সম্ভাবনা নেই। মেসির ঘনিষ্ঠ একটি সূত্রও একই দাবি করে। মাঠ থেকে ওঠার পরই ড্রেসিংরুমে মেসির চোটের শুশ্রূষা করে বার্সার মেডিক্যাল টিম। তাতেও কাজ না হওয়ায় দ্রুত হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয় চোটের পরীক্ষার জন্য। সেখানে পরীক্ষা করিয়ে হাসপাতাল থেকে বেরোনোর পর মেসি গাড়িতে ওঠেন খোঁড়াতে খোঁড়াতে।
যা দেখে শুনে মাথায় হাত বার্সেলোনা সমর্থকদের। ৫৭ দিন পরই তো এল ক্লাসিকো। তা হলে কি লা লিগার মহাম্যাচেও মেসিকে পাবে না বার্সা? আশঙ্কা ছড়িয়ে পড়ে। ঘণ্টা খানেকের মধ্যেই জানা যায় যা আশঙ্কা করা হয়েছিল সেটাই সত্যি। বার্সেলোনা টুইটারে জানিয়ে দেয়, মেসি ‘অন্তত সাত-আট সপ্তাহ মাঠে নামতে পারবেন না।’
নতুন হেয়ারস্টাইলে মাঠে নামা নেইমারের পেনাল্টি ফস্কানো সত্ত্বেও লুইস সুয়ারেজের জোড়া গোল, বার্সেলোনার ২-১ ম্যাচ জেতার আনন্দও ফিকে হয়ে যায়। বার্সোলোনার সরকারি বিবৃতিটাই সমর্থকদের মন খারাপ করে দেওয়ার জন্য যথেষ্ট ছিল, ‘‘মেসির চোট পরীক্ষা করে দেখা গিয়েছে বাঁ হাঁটুতে ইন্টারনাল কোল্যাটারাল লিগামেন্ট ছিঁড়েছে।’

মঙ্গলবার চ্যাম্পিয়ন্স লিগে ঘরের মাঠে বেয়ার লেভারকুসেনের বিরুদ্ধে লড়াই সুয়ারেজদের। আগামী শনিবার সেভিয়ায় অ্যাওয়ে ম্যাচ তো আছেই পাশাপাশি দেশের জার্সিতেও বিশ্বকাপ কোয়ালিফায়ারে নামা হবে না আর্জেন্তিনার ক্যাপ্টেনের। আট অক্টোবর ইকুয়েডরের বিরুদ্ধে ম্যাচ দিয়ে আর্জেন্তিনার কোয়ালিফায়ার অভিযান শুরু হচ্ছে। এর পর ১৩ অক্টোবর প্যারাগুয়ে ম্যাচও রয়েছে। কিছু দিন আগেই কোপা আমেরিকার ফাইনালে হারের পর দীর্ঘ নীরবতা ভেঙে মেসি বলেছিলেন কতটা মরিয়া হয়ে রয়েছেন প্রথম কোয়ালিফায়ারে খেলতে। কিন্তু সে সম্ভাবনা এখন আর নেই।

এ দিকে, মেসির চোট পাওয়ার দিন হতাশ করলেন ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডোও। এক গোল পেলেই কেরিয়ারের ৫০০তম আর হ্যাটট্রিক করলেও রিয়াল মাদ্রিদের সর্বোচ্চ গোলদাতা রাউলকে টপকে যাওয়ার সুযোগ ছিল রোনাল্ডোর সামনে। কিন্তু এ দিন মালাগার বিরুদ্ধে লা লিগার ম্যাচে গোল পেতে ফের ব্যর্থ হলেন পর্তুগিজ মহাতারকা। এই নিয়ে টানা তিন ম্যাচে গোল পেলেন না রোনাল্ডো। ম্যাচ গোলশূন্য ড্র হল।