প্রচ্ছদ » লাইফ স্টাইল » ফ্যাশন » গরমে ঈদের পোষাক যেমন হবে

গরমে ঈদের পোষাক যেমন হবে

লাইফস্টাইল ডেস্ক

untitle_Fotor_Collage_Fotor

অন্যান্য যে কোন বছরের চেয়ে এবার গরমের তাপমাত্রা তুলনামূলকভাবে বেশি। আর এবারের ঈদও কাটবে এই গরমের ভেতর। তাই এই গরমের ঈদে আরাম পাওয়ার জন্য পোশাক নির্বাচনে আলাদা গুরুত্ব দেওয়ার কোনো বিকল্প নেই। তবে গরমে পোশাক নির্বাচনের ক্ষেত্রে স্বস্তির পাশাপাশি সৌন্দর্যটাকেও খেয়াল রাখতে হবে। কেমন হওয়া উচিত এই গরমে ঈদের পোষাক? ফ্যাশন ডিজাইনার জয়ন্তীর সাথে কথা বলে তা জানাচ্ছে জান্নাতুল মাহিন-

কাপড় নির্বাচনঃ

এই গরমে পোশাকের ক্ষেত্রে সর্বপ্রথম যে জিনিসের দিকে খেইয়াল রাখতে হবে তা হচ্ছে কাপড়। গরমে সূতি কাপড়ের কোন বিকল্প নেই। তা ছাড়া এখন সুতি অ্যান্ডি কাপড়ের তৈরি পোশাকে বেশ ফ্যাশনেবল লাগে। সুতি কাপড়ের পাশাপাশি গরমে শিফন, কটন, কোটা, ধূপিয়ান, লিলেন, জামদানী, বাটিক, চিকেন ও টাইডাই এর পোষাক নির্বাচন করতে পারেন।

মডেলঃ তিথি

মডেলঃ তিথি

ছেলেদের পোশাকের ক্ষেত্রে গরমে প্রিন্টেড বা চেক কাপড়ের শার্ট আরামদায়ক। একটু ঢিলেঢালা শার্ট পরলে ঘামে কাপড় নষ্ট হবে না। এছাড়া এ সময়ে আরামদায়ক পোশাক হিসেবে টি-শার্টের বিকল্প পোশাক খুব কমই পাওয়া যাবে। এছাড়া রঙ ও নকশায় একটু ফ্যাশন সচেতন হলে টি-শার্ট পরে বিভিন্ন অনুষ্ঠানেও যাওয়া যায়।

রঙ নির্বাচনঃ
গ্রীষ্মের এই সময় পোশাক নির্বাচনের আরেকটি গুরুত্বপূর্ন বিষয় হচ্ছে রঙ নির্বাচন। গরমে খুব উজ্জ্বল আর গাঢ় রং মোটেও শোভন নয়। বরং হালকা রং যেমন— সাদা, হালকা গোলাপি, বেগুনি, আকাশি, সবুজ, ধূসর চোখের জন্য যেমন আরামদায়ক তেমনি এগুলো তাপও শোষণ করে কম। এ ক্ষেত্রে সাদা হতে পারে আদর্শ রং। এছাড়াও জলপাই সবুজ, নীলাভ আকাশি, হালকা হলুদ, ঘিয়ে হালকা ম্যাজেন্টা এ রংগুলোর হালকা শেড গরমে উপযোগী। এ সময় খুব গাঢ় রঙ নির্বাচন না করাটাই ভালো। কেননা কড়া রঙে সূর্যের তাপ খুব বেশি লাগে বলে গরম অনুভবটা বেশি মনে হয়। বিশেষ করে কালো রঙের পোশাক অতিরিক্ত তাপ শোষণ করে। তাই এ রঙের কাপড় পরিধান না করাই ভালো।

ডিজাইন নির্বাচনঃ
গরমের সময় জামাকপড় খুব বেশী ফিটিংস না হয়ে একটু ঢিলেঢালা হলেই বরং ভালো হয়। যারা হাইনেক পরেন তারা এ গরমে একটু কলার ছাড়া বড় গলা পরে দেখতে পারেন। জামা ও ফতুয়ায় গোল, ভি, চার কোনা ও মেট্রো গলা বেশি চলে।

মডেলঃ মুহাইমিনুল ইসলাম

মডেলঃ মুহাইমিনুল ইসলাম

গরমে পোশাকের হাতার ক্ষেত্রেও পরিবর্তন এসেছে। মেগি, স্লিভলেস, শর্ট হাতার ব্যবহার চলছে। তবে সূর্যের বেগুনি রশ্মির কথা মাথায় রেখে অনেকে আবার থ্রি কোয়ার্টার হাতা দিয়েও কামিজ, ফতুয়া, ব্লাউজ তৈরি করছে। গরমের কথা চিন্তা করে অনেকেই স্লিভলেস পোশাক পরে থাকেন। আবার অনেকে হাত কালো হওয়ার ভয়ে ফুল স্লিভ পরছেন। স্লিভলেস বেশ আরামদায়ক এবং ট্রেন্ডি হবে যদি বাসায় ফিরে হাতের যত্নের জন্য একটু সময় রাখেন। আর যারা ফুল স্লিভ পরবেন তারা অবশ্যই ঢিলেঢালা পরবেন। এতে গরম কম লাগবে। অথবা সিফন কাপড়ের ফুল স্লিভ পরতে পারেন।

  ছেলেদের পোশাকঃ

গরমে ছেলেদের জন্য সবচেয়ে আরামদায়ক পোশাক হচ্ছে টি শার্ট। বিশেষ করে কলেজ বা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ুয়া ছেলেদের কাছে এই পোশাকের কোনো বিকল্প নেই। কারন টি-শার্ট জিন্স, গ্যাবাডিন কিংবা অন্য প্যান্টের সঙ্গে বেশ মানিয়ে যায়। এছাড়া শার্টের ক্ষেত্রে সুতি কাপড়ের হালকা চেক শার্টও খুব আরামদায়ক হবে। এসেব ক্ষেত্রে আমাদের দেশের ফ্যাশান হাউসগুলো ছেলেদের জন্য রেডিমেট পোশাকের খুব বৈচিত্র্য এনেছে। এখানে হালকা রঙ ও ডিজাইনের বেশ ফ্যাশনেবল টি শার্ট পাওয়া যায়। আরামদায়ক প্যান্ট হিসেবেই এ সময় অনেকের পছন্দ থ্রি-কোয়ার্টার প্যান্ট। এছাড়া তরুণদের কাছে একই সঙ্গে আরামদায়ক ও চলতি ফ্যাশন হিসেবে থ্রি-কোয়ার্টার প্যান্টের চাহিদা এখন বেশ ভালো। এসব প্যান্ট সুতি, রিমি কটন, টুইল কটন, পাতলা রিমি ও চেক কাপড় দিয়ে তৈরী হলে আরো ভালো হয়।

 

>
বাংলা ইনিশিয়েটরে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।