প্রচ্ছদ » সাইন্স ভিউ » জানা-অজানা » ভয়ঙ্কর রহস্যে ঘেরা জুজু (দ্বিতীয় পর্ব)

ভয়ঙ্কর রহস্যে ঘেরা জুজু (দ্বিতীয় পর্ব)

প্রকাশ : ৩ আগস্ট ২০১৬৫:৫০:২৩ অপরাহ্ন

[pfai pfaic=”fa fa-user ” pfaicolr=”” ]  তানভীর আলম লিমন | বাংলা ইনিশিয়েটর
বন্ধুরা আজ আমরা  জুজু সর্ম্পকে সম্ভাব্য বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যা সম্পর্কে জানব-আমরা আমাদের আশেপাশে যে কোনো প্রানীর  অনেক গুলো প্রজাতিকেই দেখতে পাই। প্রতিটা প্রজাতি একে অপরের থেকে একটু আলাদা। বিজ্ঞানীরা প্রতিটা আলাদা প্রজাতির জন্য আলাদা আলাদা বৈজ্ঞানিক নাম দিয়েছেন। এইভাবে এদেরকে একে অপর থেকে সহজে আলাদা করা যায়।

উদাহরন হিসবে আমরা প্যাচার কথা বলতে পারি।বাংলাদেশে ৬ প্রজাতির প্যাচা রয়েছে। এগুলো হল-হুতুম প্যাঁচা (Bubo bengalensis), ভূতুম প্যাঁচা (Ketupa zeylonensis), লক্ষ্মীপ্যাঁচা (Tyto alba), খুঁড়ুলে প্যাঁচা (Athene brama), কুপোখ (Ninox scutulata), নিমপোখ (Otus lepiji)। কোবরা সাপ আছে ১০ প্রজাতির। আর কুকুর, বিড়াল কিংবা কবুতরের প্রজাতি হিসাব করতে গেলে সেটি কয়েক শততে পৌছাবে।

আরও পড়ুনঃ ভয়ঙ্কর রহস্যে ঘেরা জুজু (প্রথম পর্ব)

তবে এইখানে ‘প্রজাতি’র সংজ্ঞা একটু পরিষ্কার হয়ে নেওয়া ভাল । প্রজাতি হচ্ছে জীব জগতের শ্রেনীবিন্যাসের সেই সর্বনিম্ন শ্রেনী, যেখানে জীবেরা একে অপরের সাথে যৌন মিলন করে একই প্রজাতির অপর একটি fertile (সন্তান জন্ম দিতে পারবে এমন) সন্তান জন্ম দিতে পারে। ২ টা পাতি কাক একে অপরের সাথে মিলনের মাধ্যমে নতুন একটা পাতি কাক জন্ম দিতে পারবে, কিন্তু দাড় কাকের সাথে পাতি কাকের মিলনে কোন বাচ্চা হবেনা, কারন পাতি কাক আর দাড় কাকের প্রজাতি আলাদা। তবে কখনো কখনো ২ টা আলাদা প্রজাতির মিলনে সন্তান হতে পারে, তবে সেই সন্তান fertile হয়না। সেই নতুন বাচ্চা থেকে আর কোনো নতুন বাচ্চা হয়না। যেমন-ঘোড়া আর গাধার মিলনে খচ্চর জন্ম নেয়। রুই মাছ আর কাতল মাছের মিলনে জন্মায় কালিবাউশ মাছ। খচ্চর বা কালিবাউশ, এদের কারোরই সন্তান জন্ম দেওয়ার ক্ষমতা নেই কারন এরা আলাদা প্রজাতির বাবা-মা থেকে এসেছে ।

আমাদের আশেপাশের প্রতিটি প্রানীরই একাধিক প্রজাতি রয়েছে। কিন্তু মানুষের প্রজাতি কয়টা? কখনো চিন্তা করেছেন বিষয়টা?  ঠিক ধরেছেন, মানুষ এর একটাই প্রজাতি আছে পৃথিবীতে আর সেটাই হলাম আমরা (Homo sapiens)। বিষয়টা অস্বাভাবিক মনে হয়না? মানুষের কাছাকাছি বৈশিষ্ট্যসম্পন্ন অন্যান্য প্রজাতি থাকার কথা না পৃথিবীতে? বিজ্ঞানীরা বলছেন, অতীতে হোমো স্যাপিয়েন্সের মতই মানুষের আরো কয়েকটা প্রজাতি পৃথিবীতে ছিল। ২ মিলিয়ন বছর আগে Homo ergester ছিল পৃথিবীতে।

১ মিলিয়ন বছর আগেও Homo erectus ছিল, Homo antecessor নামে আরেকটা প্রজাতিও ছিল সেই সময়ে। Homo sapiens এসেছে মোটামুটি ৩ লাখ বছর আগে। ওই সময়ে পৃথিবীতে একই সময়ে জাভা মানব, পিকিং মানব, নিয়ানডারথাল মানবরাও ঘুরে বেড়াত (Homo rhodesiensis, Homo erectus , Homo neanderthalensis)। ধারনা করা হয়  হোমো সাপিয়েন্স এর সাথে যুদ্ধ করে বাকি প্রজাতিগুলো পরাজিত হয়েছে। হোমো স্যাপিয়েন্স তাদেরকে পুরোপুরিই মেরে ফেলেছে। মানুষের ওই প্রজাতিগূলোর কোনো এক পিসও এখন আর পৃথিবীতে বেঁচে নেই। তাদের এক জনকেও আমরা খুজে বের করতে পারিনি। তবে বিশ্বের বিভিন্ন দুর্গম এলাকায় মাঝে মাঝে মানুষের আকৃতির কিছু প্রানী দেখা যায়। এরা প্রায় মানুষের মতই আচরন করে। এমনকি মানুষের গলায় কথাও বলতে পারে মাঝে মাঝে। ধারনা করা হয় এরা মানুষের পরাজিত প্রজাতির অবশিষ্ট প্রানীরা। নিজেদের বাঁচিয়ে রাখতে এরা দুর্গম এলাকায় থাকে। মাঝে মাঝে এক্সিডেন্টালি মানুষের সামনে পড়ে যায়।

হিমালয়ের তুষারমানব ইয়েতি কে সন্দেহ করা হয় সম্ভাব্য হোমো ইরেকটাস এর বেঁচে যাওয়া বংশধর হিসেবে। খেয়াল রাখবেন, হিমালয় আর সিলেটের পাহাড় কিন্তু একই পাহাড়শ্রেনীর অংশ। আমাদের জুজুর গল্পে যে জিনিসটা চোখে পড়ার মত সেটা হল জুজু মানুষের গলায় কথা বলতে পারে এবং জুজু ২ পায়ে মানুষের মত চলতে পারে। হতেও পারে এরা কোনো Homo প্রজাতির বংশধর।

সেক্ষত্রে প্রশ্ন আসে, কেন তারা শুধু বাচ্চাদের এটাক করে?  বড় মানুষদের এতাক করে না কেন?  সম্ভবত বড় মানুষদের তারা ভয় পায়। শক্তিতে বা বুদ্ধিতে তারা এডাল্ট মানুষদের সাথে পারবে না বলেই তারা মানুষদের কাছ থেকে দূরে থাকে। তবে শিশুদের কাছ থেকে বিপদের ভয় নেই বলেই হয়তো জুজুরা শিশু ধরে খেতে চায়।

এটা জাস্ট একটা হাইপোথিসিস বা সম্ভাব্য বিশ্লেষন। বিস্তারিত অনুসন্ধান ছাড়া কিছু বলা যাবেনা। এমনও হতে পারে চা বাগানের কোনো মা তার পিতৃ পরিচয় বিহীন ছেলেকে নিজেই খুন করে/গ্রাম থেকে অন্য কোথাও সরিয়ে ফেলে ঘটনা ধামাচাপা দেওয়ার জন্য জুজুর গল্প তৈরি করেছিল, এবং কালক্রমে সেটাই কিংবদন্তীতে পরিনত হয়ে গেছে। কোনো নিরেট প্রমান ছাড়া কোন সিদ্ধান্তে আসা যাবেনা। এই বিষয়ে আরো তথ্য দরকার।

বাংলা ইনিশিয়েট/০৩/০৮/২০১৬/এস এস কে/ লিমন
বাংলা ইনিশিয়েটরে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।