প্রচ্ছদ » অনিয়ম » প্রেস ক্লাবের সামনে মানব বন্ধন করুন, তারপর দেখব – কাউন্সিলর

প্রেস ক্লাবের সামনে মানব বন্ধন করুন, তারপর দেখব – কাউন্সিলর

তানিয়া আফরিন, নরসিংদী প্রতিনিধি

waste

‘নাক চেপে ধরে এক শত গজ পথ চলতে দম বন্ধ হওয়ার উপক্রম হয়। ছাড়লেই দুর্গন্ধে পেট ফেঁপে যায়। ওই টুকু রাস্তা অতিক্রম করা মানেই জীবন হাতে নিয়ে যাওয়া’। এমন মন্তব্য একজনের নয়, শত শত মানুষের। বিশেষ করে যারা ঢাকা-ভৈরব মহাসড়কের উপর দিয়ে চলাচল করে।

 

মহাসড়কতো নয় যেন ময়লার ভাগার।  ভেলানগর এলাকার ময়লা আবর্জনা ফেলার নিজস্ব কোন ডাম্পিং পয়েন্ট না থাকার কারণে  মহাসড়কেই ব্যবহার করছে সিটি কর্পোরেশনের কর্মীরা। প্রকাশ্যে দিনের বেলায় সিটি কর্পোরেশনের লোকেরা  ভ্যানযোগে এসব ময়লা আবর্জনা মহাসড়কের পাশের ফুটপাতে ফেলছে । মহাসড়কের ব্রিজ এর উত্তর পাশে রয়েছে একটি উচ্চ বিদ্যালয়। ব্রিজের দক্ষিন পাশে শিক্ষার্থীদের বিদ্যালয়ে যাওয়ার জন্য  একটি মাত্র রাস্তা থাকায় বাধ্য হয়ে এ রাস্তা দিয়েই চলাচল করতে হয় তাদের।  চলাচলের সময় নাকে ভেসে আসে ময়লার উৎকৃট দূগর্ন্ধ। ফলে  পথচারীরা ফুটপাত ব্যবহার করতে না পেরে মহাসড়কের উপর দিয়েই চলাচল করছে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে। এর ফলে চরম ভোগান্তির শিকার হচ্ছে পথচারীসহ চলাচলরত বিভিন্ন যানবাহনের যাত্রীরা । এই ময়লা আবর্জনার গন্ধটা এতোটাই তীব্র যে যানবাহন দিয়ে চলাচলের সময়ও  লোকজন নাকে  রুমালে চেপে ধরে চলতে হয়।  দিন দিন ময়লার আকার বাড়ছে আর নষ্ট হচ্ছে পরিবেশ,  বাড়ছে দূগর্ন্ধ।

 

জানা গেছে আজ থেকে প্রায় ৭-৮ বছর আগে এই ময়লা ফেলা নিয়ে অভিযোগ এনেছিলো শিক্ষার্থীরা। কিন্তু নরসিংদী সিটি কর্পোরেশন এ ব্যাপারে কোনো উদ্যোগ নেয়নি । যার ফলে আজ ৭-৮ বছর পরও কোনো পরিবর্তন দেখা যাচ্ছে না। তাই নগর বাসি ও শিক্ষার্থীরা পড়ছে চরম দূর্ভোগে। 
screenshot_1
এদিকে আবার ভৈরব-ঢাকা মহাসড়কে আরেক জায়গায়  প্রায় দশ মিনিটের রাস্তার দূরর্ত্বে এরকম আরেক খোলা ডাস্টবিন ও ময়লা আবর্জনার স্তুপ দেখা যায় যা নরসিংদী জেলখানার একদম পাশে। এতে করে আরো ভোগান্তিতে পড়ছে নগরবাসি। শুধু তাই নয় এলাকার আরো বেশ কয়েকটি জায়গায় এমন খোলা ডাস্টবিন দেখা যায় । এইসব খোলা ডাস্টবিন এর কারনে রাস্তায় হাটতে গেলে রুমাল নাকে মুখে চেপে  ময়লা আবর্জনা মাড়িয়েই হাটতে হয়।

 

এ বিষয়ে নরসিংদী ১ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর  বিষয়টির সত্যতা স্বীকার করে জানান ” বিষয়টি আমার করা কিছু নেই। আমি এলাকা বাসীকে কয়েকবার বলেছি প্রেস ক্লাবের সামনে মানব বন্ধন-র‍্যালী করতে । তারপর আমরা এটা বিবেচনা করে মেয়রের কাছে একটা দরখাস্ত দিব “।
>
বাংলা ইনিশিয়েটরে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।