প্রচ্ছদ » বাংলাদেশ » বিশ্ব ডাক দিবস আজ

বিশ্ব ডাক দিবস আজ

  গাজী নাহিদ আহসান (১৬), বাংলা ইনিশিয়েটর, ঢাকা

1520140215112002৯ অক্টোবর,বিশ্ব ডাক দিবস। অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশেও পালিত হয় এই ডাক দিবস। ডাক দিবস পালিত হলেও এখন বাংলাদেশের ডাক ব্যবস্থা বিলুপ্তির পথে।ডাক যোগাযোগব্যবস্থা আছে ঠিক ই, কিন্তু যোগাযোগ করার মানুষ এর পরিমান কমে গেছে। তথ্য প্রযুক্তির অত্যাধিক উন্নয়নের কারনেই ডাক ব্যবস্থার আজ এই অবস্থা বাংলাদেশে।

ডাক দিবসের ইতিহাস ঘেঁটে জানা যায়, ইউরোপের ২২টি দেশের প্রত্যক্ষ তত্ত্বাবধানে ১৮৭৪ খ্রিস্টাব্দের এদিনে সুইজারল্যান্ডের বার্ন শহরে গঠিত হয় ‘জেনারেল পোস্টাল ইউনিয়ন’। প্রতিটি দেশের ডাক যোগাযোগব্যবস্থারর উন্নয়ন করা, ডাক আদান-প্রদান আরো সহজ এবং সমৃদ্ধশালী করার মধ্য দিয়ে বিশ্বজনীন পারস্পরিক যোগাযোগকে সুসংহত করার লক্ষ্য নিয়েই এ সংস্থার উদ্ভব। একসময় এই ‘জেনারেল পোস্টাল ইউনিয়ন’ ‘ইউনিভারসাল পোস্টাল ইউনিয়ন’ বা ‘ইউপিইউ’ নামে পরিচিত লাভ করে।

১৯৬৯ সালের এই সংস্থার ১৬ তম অধিবেশন হয় জাপানের টোকিওতে। সেই অধিবেশনে ৯ অক্টোবরকে ‘বিশ্ব ডাক ইউনিয়ন দিবস’ নির্ধারণ করা হয়। এরপর ১৯৮৪ সালে জার্মানির হামবুর্গে অনুষ্ঠিত বিশ্ব ডাক ইউনিয়নের ১৯ তম অধিবেশনে ৯ অক্টোবরকে ‘বিশ্ব ডাক ইউনিয়ন দিবস’ থেকে পরিবর্তন করে ‘বিশ্ব ডাক দিবস’হিসেবে নির্ধারণ করে।

বাংলাদেশ ১৯৭৩ সালের ৭ ফেব্রুয়ারি ‘ইউপিইউ’ এর সদস্য হয়।সেই থেকেই এই সংস্থার সাথে কাজ করে আসছে বাংলাদেশের ডাক যোগাযোগ অধিদপ্তর।তবে এখন বাংলাদেশের ডাক যোগাযোগব্যবস্থা হুমকির সম্মুখিন।বিলুপ্তির পথে এই যোগাযোগব্যবস্থা। এখন ডাকব্যবস্থা কিছু সরকারী কাজ ছাড়া অন্য কোনো  কাজেই আসে নাহ। কারন তথ্য প্রযুক্তির এই যুগে সমাজের সবচেয়ে নিন্ম শ্রেনির মানুষ এর হাতেও রয়েছে মোবাইল ফোন।

>
বাংলা ইনিশিয়েটরে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।