প্রচ্ছদ » খেলাধুলা » সিরিজ জেতার আশা বাঁচিয়ে রাখলো বাংলাদেশ

সিরিজ জেতার আশা বাঁচিয়ে রাখলো বাংলাদেশ

  নুহিয়াতুল ইসলাম লা্বিব(১৬) , বাংলা ইনিশিয়েটর, ঢাকা

mashrafemortaza-cropped_kf85by8c4g8c1e7x4nxjo7loe

ম্যাচের বয়স তখন ৪১ ওভার। ইতিমধ্যেই আউট হয়ে গেছে তরুন উদীয়মান ব্যাটসম্যান মোসাদ্দেক । তবে রান যে এখনো দুইশত পেরোয় নি । তবে বাংলাদেশ কি দুইশত রানও করতে পারবে না ? নাহ দুইশত কেন করতে পারবে না টাইগারবাহিনী ?

মাঠে যে তখন এসেছে টাইগার ক্যাপ্টেন মাসরাফি আর সাথে রয়েছে ফিনিশার নাসির হোসেন। দীর্ঘদিন পর ম্যাচে ফিরে নাসির বেশ চমক দেখাবে এমনি প্রত্যাশা সবার । সবার প্রত্যাশাকে একটুও মাটি করে দেয় নি তিনিও । কিন্তু হাতে যে আর তেমন সময় ছিল না তাদের । বাকি আছে কেবল ৪৯ টি বল । ২৯ বলে ৪৪ রানের যে ঝড়ো ইনিংস মাসরাফি খেলেছেন তাই শেষ পর্যন্ত ২৩৯ রানের লক্ষ্য বেধে দিতে সহায়তা করেছে বাংলাদেশকে।ফিনিশার নাসির শেষ পর্যন্ত মাঠে থেকেছিলেন ঠিকই কিন্তু নামের পাশে ২৭ রান বড়ই বেমানান ঠেকছিল।

২৭ রানের ইনিংসটি খেলতে একেবারে গুনে গুনে ২৭ বল সময় নিয়েছিলেন এই ডানহাতি ব্যাটসম্যান। তবে মাহমুদুল্লাহ এর অবদান ভুলে গেলে কিন্তু চলবে না । ৮৮ বলে ৭৫ রানের ইনিংসটা খেলে বেশ আশা জুগিয়েছিলেন কিন্তু আদিল রশিদের বলে এল বি ডব্লিউ হয়ে আশাটা কিছুটা ফিকে হয়ে যায়। প্রথম ম্যাচের সেঞ্চুরিয়ান ইমরুল কায়েস ১১ রানে ফিরে গেলে রীতিমতো সাজঘরে ফেরার প্রতিযোগিতায় নামে ব্যাটসম্যানরা । তামিম (১৪), সাব্বির(৩),মুশফিক(২১), সাকিব(৩) রানে ফিরে যাওয়ায় ২৩৮ রানে থামতে হয় বাংলাদেশকে ।

বোলিং এ এসে বোঝাই যাচ্ছিল না বাংলাদেশের ব্যাটিং পর্বটা মনমতো হয় নি । রান কম তাতে কি, ঘুড়ে দাঁড়াতে যদি নাই পারে নাম তবে টাইগার কেন হবে ? প্রথম ওভারের প্রথম বলেই সাকিব আল হাসানের আবেদন । কিন্তু বলটা বেশ উঁচু হওয়ায় হতে হতেও হলো না আউট। এরপর একের পর এক জাদু দেখালেন মাসরাফি আর সাকিব । ১২ রানে প্রথম উইকেট, ১৪ রানে দ্বিতীয়, ২৪ রানে তৃতীয় , ২৬ রানে চতুর্থ উইকেট !!!

প্রথম ৪ উইকেট এর তিনটিই মাসরাফির । কিন্তু তাসকিন , নাসিররা বসে থেকবে কেন ? উইকেট নিতে তারাও কোনো ভুল করেনি। ১২৩ রানে বাটলারকে আউট করে  জয়কে একেবারে হাতের মুঠোয় এনে দেয় তাসকিন । আজ আর তাসকিনের উইকেট টেকিং ডেলিভারিগুলোতে ক্যাচ মিস করে নি কেউ । মাসরাফির সামান না হলেও ৩টি উইকেট তুলে নিল এই পেসার । নাসির হোসেন তাসকিনের মতো উইকেট না পেলেও ১০ ওভারে ২৯ রান দিয়ে তুলে নিয়েছেন ১ টি উইকেটও । দশম উইকেট জুটিতে বল এবং রশিদ বেশ কিছু রান যোগ করায় শেষ পর্যন্ত ২০৪ রানে ইনিংস শেষ করতে হয় ইংলিশদের ।

বাংলাদেশের জন্য ম্যাচটি জেতাটা একেবারে বাধ্যতামূলক হয়ে পড়েছিল। কেননা সিরিজ জিততে হলে ম্যাচটা যে জিততেই হবে । অবশেষে সেই কাঙ্ক্ষিত জয় ধরা দিল ৪৪ নম্বর ওভারের চতুর্থ ওভারে তাও সেই মাসরাফির বলেই । ক্যাচটা অবশ্য লুফে নিয়েছেন নাসির হোসেন । ঝুলিতে কম রান নিয়ে প্রতিদ্বন্দিতা করলেও বেশ ভালোভাবেই ম্যাচটা জিতে নেয় বাংলাদেশ। তবে পরবর্তী ম্যাচে ঠিকই হয়তো ঝুলিতে বেশ ভালো রসদই নিয়ে আসবে টাইগাররা । তামিম, ইমরুল, মুশফিক, সাব্বির মেলে ধরবে তাদের স্বভাবসুলভ ব্যাটিং।

>
বাংলা ইনিশিয়েটরে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।