প্রচ্ছদ » বাংলাদেশ » প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রুত সেতু নির্মান প্রক্রিয়া শুরু

প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রুত সেতু নির্মান প্রক্রিয়া শুরু

 ইনিশিয়েটর ডেস্ক, ঢাকা

1510519পটুয়াখালীর চতুর্থ শ্রেণির ছাত্র শীর্ষেন্দু বিশ্বাসকে দেয়া প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী পায়রা নদীতে সেতু নির্মাণ পর্যবেক্ষনের জন্য যাচ্ছেন ৭ সদস্যের একটি পর্যবেক্ষক দল।
 
বৃহস্পতিবার সেতু মন্ত্রনালয়ের ৭ সদস্যের পর্যবেক্ষক দলটি সেতু নির্মাণস্থল সরেজমিন পরিদর্শন করবেন।
 
পটুয়াখালী সড়ক ও জনপথ (সওজ) বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে বাংলাদেশ সেতু কর্তৃপক্ষ (বাসেক) কর্তৃক সরেজমিনে পরিদর্শন করে প্রতিবেদন দাখিলের জন্য ১৮ অক্টোবর ৭ সদস্যের একটি বিশেষজ্ঞ দল গঠন করে অফিস আদেশ দেয়া হয়।
 
৭ সদস্য হলেন- সেতু বিভাগের যুগ্ন সচিব আলীম উদ্দিন আহমেদ, সেতু বিভাগের প্রধান প্রকৌশলী কবির আহমেদ, যুগ্ন সচিব মো. সামসুজ্জামান, উপ-সচিব মো. রেজাউল হায়দার, মো. জাকির হোসেন, সেতু বিভাগের দুই নির্বাহী প্রকৌশলী ওহিদুজ্জামান ও মো. আবুল হোসেন।
 
তাদেরকে পরর্বতী ৭ কার্যদিবসের মধ্যে সেতুর স্থান পরিদর্শন করে সুপারিশসহ কর্তৃপক্ষের কাছে প্রতিবেদন দেয়ার নির্দেশনা দেয়া হয়।
 
প্রসঙ্গত, পটুয়াখালী সরকারি জুবিলি উচ্চ বিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণির ছাত্র শীর্ষেন্দু বিশ্বাস। তার গ্রামের বাড়ি পটুয়াখালীর মির্জাগঞ্জ। গ্রামের বাড়ি যাতায়াতের পথে পায়রা নদী পার হতে হয়। কিন্তু পায়রা নদীতে সেতু না থাকায় প্রতিবারই তাকে দুর্ভোগে পড়তে হয়।
 
এজন্য গত ১৫ আগস্ট শীর্ষেন্দু পায়রা নদীতে একটি সেতু নির্মাণের অনুরোধ জানিয়ে প্রধানমন্ত্রীর কাছে একটি চিঠি লেখে। পরে তার মা শিলা রানী চিঠিটি ডাকযোগে প্রেরণ করেন।
 
প্রধানমন্ত্রী চিঠিটি পেয়ে ৮ সেপ্টেম্বর লিখিতভাবে সেতু নির্মাণের আশ্বাস দিয়ে পাল্টা চিঠি দেন। প্রধানমন্ত্রীর এই চিঠিটি শীর্ষেন্দুর স্কুলে এসে পৌঁছায় গত ২০ সেপ্টেম্বর।
 
২৭ সেপ্টেম্বর সরকারি জুবিলী উচ্চ বিদ্যালয়ের অডিটরিয়ামে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে জেলা প্রশাসক একেএম শামিমুল হক ছিদ্দিকী চিঠিটি চতুর্থ শ্রেণির ছাত্র শীর্ষেন্দু বিশ্বাসের হাতে তুলে দেন।

পড়ূনঃ ৪র্থ শ্রেনী পড়ুয়া শিশুর চিঠির জবাব দিলেন প্রধানমন্ত্রী

>
বাংলা ইনিশিয়েটরে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।