প্রচ্ছদ » অনিয়ম » রাস্তায় অবৈধভাবে বাস রাখায় ভোগান্তিতে জনসাধারণ

রাস্তায় অবৈধভাবে বাস রাখায় ভোগান্তিতে জনসাধারণ

খাতুনে জান্নাত(১৪) | বাংলা ইনিশিয়েটর

সারিসারি বাস একের পর এক দাঁড়িয়ে আছে। সামনে যতদূর চোখ যায় শুধু বাস আর বাস। প্রশস্থ রাস্তায় অর্ধেকটা জুড়েই রাখা হয়েছে ‘মোহনা’, ‘চ্যাম্পিয়ন’ ইত্যাদি বিভিন্ন কোম্পানির গাড়ি। যেন এভাবে গাড়িগুলো সাজিয়ে রাখাই নিয়ম-প্রতিদিন গাড়িগুলোকে রাখা দেখে এমনটাই মনে হবে।

বলছি রাজধানীর মিরপুর ১৪-এর কথা। রাজধানীর মিরপুর ১৪-এর মোয়াজ্জেম চত্বর থেকে শুরু করে দুই-তিন মিনিট পর্যন্ত হেঁটে গেলে রাস্তার দুই পাশেই দেখা যায় শুধু বাসের সারি। এই দৃশ্য দেখে কান্ডজ্ঞানসম্পন্ন যেকোন মানুষের মনেই প্রশ্ন আসবে- ‘এটা কি কোনো পার্কিং এরিয়া?’ উত্তর হলো-না। রাস্তার কোনো জায়গায় গাড়ি পার্ক করা যাবে এমন কোনো তথ্য লেখা নেই। তবে অবৈধভাবে কেন রাখা হচ্ছে দিনের পর দিন এই বাসগুলো?

কেন বাস রাখা হচ্ছে তার চেয়েও বড় ব্যাপার হলো এই জায়গায় বাস রাখার ফলে জনগণের তীব্র ভোগান্তি হচ্ছে। কয়েক বছর আগে যখন রাস্তাটা এতটা চওড়া করা হয়নি,তখন এখানে ছিল না বাস রাখার মতো কোনো জায়গা। যার কারণে বাস রাখাও হতো না। কিন্তু বর্তমানে মিরপুরের এই রাস্তায় বাস সাজিয়ে রাখা কোনো নতুন ব্যাপার নয়। কারণ প্রতিদিন সকালে এইসব বাসের কারণে রাস্তাটিতে হয় প্রচন্ড যানযট। রাস্তাটি সংলগ্ন ‘শহীদ পুলিশ স্মৃতি কলেজ’-এ শিক্ষার্থীরা আসা এবং যাওয়ার সময় এই যানযটের কারণে পড়ে চরম দূর্ভোগে।

কথা হলো মার্কস মেডিকেল কলেজে অধ্যয়নরত শিক্ষার্থী মেহেদির সঙ্গে। তিনি এ ব্যাপারে বলেন, “শুধুমাত্র এই জায়গাটায় এভাবে বাস পার্কিং করে রাখার জন্য পড়তে হচ্ছে ভোগান্তিতে। রাস্তা বড় করা হয়েছে মানুষের সুবিধার জন্য। কিন্তু তারা অবৈধভাবে গাড়ি রেখে সকালবেলা যানযট সৃষ্টি করছে।”

আরেকজন পথচারী ডাঃ রেহানা এ ব্যাপারে বলেন, “এখানে বাসগুলো দাঁড়িয়ে থাকার কারণপ অনেক সমস্যা হচ্ছে। তার মধ্যে একটি প্রধান সমস্যা হলো-যখন রাস্তা পার হই, তখন ঠিক বুঝতে পারা যায় না বাস কোনদিক দিয়ে আসছে। কারণ আমার দুইপাশেই বাস পার্ক করা। যেকোন সময় হঠাৎকারে এগুলো ছেড়ে দিলে বিপাকে পড়তে হয়। আবার অনেকে রাস্তার ওপর দাঁড়িয়ে বাস ঠিক করছে। তো পথচারীদের অনেক সমস্যাই হচ্ছে। দূর্ঘটনা ঘটার সম্ভবনা বেশি থাকে। আমার বাচ্চাকে একা একা স্কুলে পাঠাতে পারিনা এই দূর্ঘটনার ভয়ে। চাইলেই একা পাঠানো যায়, কিন্তু এটুকু এরিয়ার জন্য পাঠাতে পারি না। তাই আমি না পারলে বাসার রেসপন্সিবল কাউকে দিয়ে পাঠাতে হয়।”

নাম প্রকাশ না করার শর্তে মিরপুর ১৪ এলাকার কর্তব্যরত এক ট্রাফিক পুলিশ এ ব্যাপারে জানান, “আমি যখন যাই, তখন একটা বাসকেও দেখা যায় না। আমাকে দেখার সাথে সাথে সবগুলো ড্রাইভার বাস নিয়ে পালায়। কিন্তু কিছুক্ষণ পর আবার এখানে বাস রাখে। আমি একা একা এতগুলো ড্রাইভারকে কন্ট্রোল করতে পারিনা।”

ওনাকে প্রশ্ন করেছিলাম বাসগুলো এখানে দাঁড়িয়ে থাকার কারণে কোনো বাস ড্রাইভারকে কি শাস্তির আওয়ায় আনা হয়েছিল কিনা। উত্তরে তিনি বললেন, “মাঝেমাঝে আমি বিভিন্ন ড্রাইভারকে জরিমানা করি। অনেক সময় লাইসেন্স বাতিল করেও দিই। কিন্তু তারপরেও আবার এখানে এসে বাসগুলো রাখা হয়। বাসগুলোর মালিক সমিতির সাথে আমরা মাঝেমাঝে বসে আলোচনা করি, কিন্তু ফলাফল শূন্য। এভাবে বাস রেখেই যাচ্ছে। আমার একার পক্ষে এতগুলো বাস এখান থেক সরানো সম্ভব নয়। এরজন্য মালিক ও ড্রাইভারদের সহযোগিতাও থাকতে হবে।”

প্রতিদিন এভাবেই অবৈধভাবে রাখা হচ্ছে বিভিন্ন বাস। অনেকসময় দেখা যায় এই ভুল জায়গায় বাস পার্কিং করে ড্রাইভার ভিতরে ঘুমাচ্ছে। শুধুমাত্র তাদের কর্তব্যজ্ঞানহীনতার জন্য হাজার হাজার মানুষ পড়ছে বিপাকে।

>
বাংলা ইনিশিয়েটরে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।