প্রচ্ছদ » খেলাধুলা » মাশরাফির টি-টুয়েন্টি ক্যারিয়ারের শেষ ম্যাচ স্বরণীয় করে রাখলো সতীর্থ্যরা

মাশরাফির টি-টুয়েন্টি ক্যারিয়ারের শেষ ম্যাচ স্বরণীয় করে রাখলো সতীর্থ্যরা

প্রকাশ : ৬ এপ্রিল ২০১৭১১:৫৯:৪৩ অপরাহ্ন

[pfai pfaic=”fa fa-user fa-spin ” pfaicolr=”” ]  মো. মোস্তফা মুশফিক তালুকদার | বাংলা ইনিশিয়েটর

আজ থেকে ১০বছর আগে ২নম্বর জার্সিটা গায়ে জড়িয়ে বাংলাদেশ জাতীয় টি-টুয়েন্টি দলের এক অবিচ্ছেদ অংশ হয়ে ওঠেন মাশরাফি বিন মর্তূজা। সেইদিন থেকে আজকের ৬ এপ্রিল পর্যন্ত নিজের কাধেঁ দায়িত্ব চেপে নানা সময় নানা ঘটনা, কত হাসি, কান্না, রাগ, অভিমান, আক্ষেপ, জয় আরো নানা অভিব্যাক্তি অনুভূতির সাক্ষী  আমাদের আজকের এই পূর্ণপক্ব নড়াইল এক্সপ্রেস, এই খেলাটি যখন দেখছিলাম, এই আক্ষেপ ছিলো ব্যাট হাতে তিনি সফল না হলেও বল হাতে যাতে একটা উইকেট অন্তত তার ঝুলিতে আসে, আসলো তা ঠিকই তার শেষ ওভারের চতুর্থ বলে। নিজেকে সত্যিই তখন পরিপূর্ণ মনে হলো।

আর সাইফুদ্দিন যখন ১০ম উইকেট টি নিয়ে মাশরাফির শেষ জয় নিশ্চিত করলেন, মাশরাফি একবার ওপরের দিকে তাকালেন, ইশ্বরকে ধন্যবাদ ই দিচ্ছিলেন বোধহয়। আজ তিনি ক্যারিয়ারের ৫৩তম ম্যাচ আর ক্যাপ্টিনেস্টির ২৮তম ম্যাচ শেষ করে তিনি মাঠ থেকে বেড়িয়ে যাচ্ছেন বীরের বেশে। সেই দিনের কথা হঠাৎ মনে পড়ে গেলো, গত ৪ এপ্রিল টচটা জেতার পর যখন সেকথা বলছিলেন ধারাভাষ্যকারকে, পুরো দেশ তখন ভাসছিলো আনন্দের ধারায়, পরক্ষনেই তিনি জানালেন তার মুদ্রার ওপিঠের কথা, মাশরাফি আজথেকে অবসর নিচ্ছেন আন্তর্জাতিক টি-টুয়েন্টি থেকে। বুকটা তখনই ধক করে উঠে কিঞ্চিৎ ব্যাথা অনুভূত হলো, সত্যিই তাই, এ যেন বিশ্বাসযোগ্য নয় এই ম্যাশ কে ক্রিকেটের এই সবচেয়ে ছোটো ভার্সনে দেখা যাবেনা আর। আজ নাঠে পুরো ১১টা খেলোয়াড় ছিলো ১১টা বীর, প্রত্যেকে আজ খেলেছেন তার শতভাগ দিয়ে, পূরণ করেছে তাদের প্রতিশ্রুতি।

বাংলাদেশ বনাম শ্রীলংকার এই ম্যাচটি সত্যিই এক অন্যরকম সিরিজ ছিল, একসাথে ঘটেছে একাধিক মিরাকেল। এই সফরে বাংলাদেশ জিতেছে তাদের শততম টেস্ট, এবং একই সাথে টেস্ট, ওয়ানডে ও টি-টুয়েন্টি তিন ফরমেটেই সিরিজ হয়েছে ড্র। তাছাড়া আজকের এই দিনেই ৩বছর আগে,বাংলাদেশের মাটিতে শ্রীলংকা জিতেছিল বিশ্বকাপ। আর আজ বাংলাদেশ শ্রীলংকার মাটিতে জিতেছে শ্রীলংকার বিপক্ষ্যে। যাইহোক আজকের ম্যাচে, সতীর্থ্যরা খেলেছেন মূলত তাদের সবটুকু দিয়ে, খেলেছেন তাদের মাথার উপর আশ্রয় আদের বড়ভাই এর জন্য। দলের পক্ষ্যে ইমরুল কায়েস ও সাকিব আল হাসান রান করেছেন যথাক্রমে ৩৬ ও ৩৮ করে। আর মুস্তাফিজ ও সাকিব উইকেট নিয়েছেন যথাক্রমে ৪ ও ৩টি করে। মাশরাফিকে তার শেষ সিরিজ সম্পর্কে বলতে বললে তিনি অতি সারাধণ ভাবে সাবলীল ভাষায় সতীর্থ্য, বোর্ড আর পরিবার কে ধন্যবাদ জানিয়ে চলে গেলেন মঞ্চ থেকে।

বিদায় নিলেন টি-টুয়েন্টি ক্যারিয়ার থেকে। তব এ বিদায় কি সত্যিই বিদায়। খুব সম্ভবত তা নয় মাশরাফি, ম্যাশ, নড়াইল এক্সপ্রেস, পাগলা, স্পীড স্টার, কৌশিক তথা সম্পূর্ণ মাশরাফি সত্ত্বা থাকবেন সবসময়, থাকবেন সেই ড্রেসিং রুমে, থাকবেন তার সতীর্থ্যদের মাঝে, বেচেঁ থাকবেন তার ইতিহাসের মাঝে, ষোল কোটি মানুষের ভালোবাসায় সিক্ত সেই ২নাম্বার জার্সিটাতে।

বাংলা ইনিশিয়েটরে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।