প্রচ্ছদ » অনিয়ম » আইন না মেনে মহিলা সিটে পুরুষের আধিপত্য

আইন না মেনে মহিলা সিটে পুরুষের আধিপত্য

  সাব্বির রায়হান অপি | বাংলা ইনিশিয়েটর

“মহিলা, শিশু, প্রতিবন্ধিদের সংরক্ষিত আসন ৬টি” লেখাটি রাজধানীর প্রায় বাসেই দেখতে পাওয় যায়। অথচ এই ছয়টি আসনেও অনেক সময় পুরুষদের আধিপত্য বিরাজ করে। তাই যাদের জন্য সংরক্ষিত আসন সেই নারীদেরকেই অনেক সময় দাঁড়িয়ে যাতায়াত করতে দেখা যায়।  সব দেখে শুনেও দায় এড়িয়ে যাচ্ছে বাসের কন্ডাক্টর অথবা হেলপারাও।

প্রতিটি বাসে মহিলাদের জন্য সংরক্ষিত আসন থাকা আইনত বাধ্যতামূলক হলেও প্রায় বেশিরভাগ বাসেই তা দেখা যায় না। কিছু দিন আগে যোগাযোগ মন্ত্রনালয় ও পরিবহন মালিক সমিতির বৈঠক হয়। সেখানে প্রতিটি বাসে মহিলা, প্রতিবন্ধি ও শিশুদের জন্য সংরক্ষিত আসনে জোড় দেওয়ার পাশাপাশি, ঐ আসনগুলোতে কোন পুরুষ বসলে তাদের শাস্তির ব্যপারেও আলোচনা হয়। পরবর্তিতে সরকার নির্দিষ্ট ঐ আসনে পুরুষ বসলে নির্দিষ্ট পরিমান অর্থ দন্ড এবং কারাদন্ড দেয়ার আইন পাশ করে।

কিন্তু এত কিছুর পরেও এই প্রবণতা এখনো কমে নি। বরং তাদেরকে যখন প্রশ্ন করা হয়, কেন মহিলা সিটে বসেছেন? উত্তরে তারা নানা ধরনের অজুহাত দেখাতে শুরু করে। কেউ বলেন, “এইতো সামনেই নেমে যাব। সিট খালি পেয়েছি তাই বসে পরেছি।” আবার কেউ বলেন, “মহিলারা কি পুরুষদের সিটে বসে না? আমরা বসলেই দোষ?” পুরুষদের জন্য যে কোন নির্দিষ্ট আসন নেই তা বোঝাতে গিয়ে শুধু তর্কই বেড়েছে। বাসের কন্টাকটারকে যখন প্রশ্ন করা হয় তখন তারা বলেন, “কেউ মানতে চায় না, যে যেখানে ইচ্ছা বসে পরে। বলতে গেলে ঝামেলা হয়। তাই এখন আর কিছুই বলে না”। নতুন আইনের ব্যাপারে জানতে চাইলে দেখা যায় তারা প্রথমবারের মত কথাটি শুনেছে। অথচ আইন ভঙ্গের জন্য বাস সংশ্লিষ্টদের জন্যও রয়েছে নির্দিষ্ট পরিমান শাস্তি।

নিয়মিত বাসে যাতায়াত করেন এমন একজন মহিলা যাত্রীকে প্রশ্ন করলে তিনি বলেন, “আমি নিয়মিত বাসে করে ভার্সিটিতে যাই। কিন্তু মহিলাদের জন্য নির্দিষ্ট আসন থাকার পরেও প্রায় মাঝেমধ্যেই দাড়িয়ে ভ্রমন করতে বাধ্য হয়। যেখানে মানবতার খাতিরেই সিট ছেড়ে দেয়ার কথা সেখানে তারা কিভাবে তারা মহিলা সিট দখল করে বসে থাকে তা আমাকে অবাক করে।” আইন পাশ তো হয়েছে, এখন তা বাস্তবে দেখতে চায় এই মহিলা বাস যাত্রী ।

 

বাংলা ইনিশিয়েটর/ ৮ মার্চ ২০১৭/লাবিব/অপি

>
বাংলা ইনিশিয়েটরে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।