প্রচ্ছদ » বিনোদন » ভালোবাসার “আর্টসেল”

ভালোবাসার “আর্টসেল”

ওমর ফারুক, বাংলা ইনিশিয়েটর

প্রকৃত ভাবেই যারা বাংলা গান পছন্দ করেন তাদের মধ্যে “আর্টসেল” ব্যান্ড এর নাম শুনেনি এমন মানুষ খুব কমই পাওয়া যাবে ।ব্যন্ড সঙ্গীতে তাই এখন পর্যন্ত সবচেয়ে জনপ্রিয় ব্যন্ডের নামটি “আর্টসেল”।

১৯৯৯ সালে যাত্রা শুরু হয় আর্টসেলের। তখন থেকেই আর্টসেল এই দেশের মানুষদের কে দিয়ে আসছে ব্যাপক বিনোদন। সর্বপ্রথম লিংকন, এরশাদ, সাজু, সেজান দ্বারা শুরু হয়েছিল এ ব্যান্ডের যাত্রা। উক্ত ব্যান্ডে ভোকাল হিসেবে আছেন জর্জ লিংকন ডি কস্তা এবং ড্রামে রয়েছেন “সাজু” , লিড গিটারিস্ট হিসেবে আছেন “এরশাদ” , আর ব্যেস গিটারে রয়েছেন “সেজান”। এই পর্যন্ত আর্টসেল’র দুইটি একক অ্যালবাম বের হয়েছে , অন্যসময় (২০০২) এবং অনিকেত প্রান্তর (২০০৬) । তাছাড়াও তারা কাজ করেছেন বেশ কিছু মিক্সড অ্যালবামে। সেখানে ছিল দুঃখ বিলাশ, এই বিদায়ে, চিলেকোঠার সেপাই, উৎসবের উৎসাহে, প্রভু, অদেখা স্বর্গ এরকম আরও ব্যাপক গান ।মজার ব্যাপার হল “এই বৃষ্টি ভেজা রাতে” গানটির কথা জানেন না এমন আর্টসেল ভক্ত হয়তো খুবই কম আছেন, কিন্ত এই গানটির সম্পর্কে অনেকেরই একটি ভুল ধারনা রয়েছে , অনেকেই মনে করেন এই গানটি আর্টসেল’র কিন্ত তা নয় এই গানটি আর্টসেল’র সৃষ্টির পূর্বে ব্যান্ডটির ভোকাল “জর্জ লিংকন ডি কস্তা”এর নিজের একক ভাবে গাওয়া গান।

১৯৯৯ থেকে ২০০৬ পর্যন্ত টানা ৭ বছর একসাথে কাজ করার পর বিচ্ছিন্ন থাকে ব্যান্ডটি। এরপর, দীর্ঘ ৯ বছর পর “জয় বাংলা ২০১৫” কন্সার্টে আবার এক সাথে স্টেজে উঠতে দেখা যায় তাদেরকে। যদিও ব্যান্ডের ড্রামার সাজু ফিরে আসেননি এখনো। একটানা ১০ বছর নিস্ক্রিয় হয়ে থাকে ব্যান্ডটি। সেই নিস্ক্রিয়তা কাটিয়েই ২০১৬ সালে প্রকাশ করে “স্পর্শের অনুভূতি” নামক একটি গান । যা জনপ্রিয়তা পেলে “জিপি মিউজিক” থেকে প্রকাশিত হয় “অবিমৃশ্যতা” গানটি। এই দু’টি গানই সংযুক্ত করা হবে আসন্ন এলবামে। আশা করা হচ্ছে চলতি বছর এর মধ্যে তাদের “অর্তৃতীয়” নামক একটি এলবাম প্রকাশিত হবে। আর্টসেলের মোট মিউজিক সংখ্যা ৩৯টা (৪টি ইন্সট্রুমেন্টালসহ) ।উক্ত ব্যান্ডটির ৪ জন মেম্বারই ছিল স্কুল জীবনের বন্ধু কিন্ত গানের জগত এ প্রথম পা দেয় “এরশাদ” মূলত তার হাত ধরেই ব্যান্ডটির উঠে আশা। দীর্ঘ ১৮ বছর ধরে উক্ত ব্যান্ডটি দেশের লাখো গান প্রেমী শ্রোতার সঙ্গি হয়ে উপহার দিয়েছে মনোমুগ্ধকর সব গান।

>