প্রচ্ছদ » আন্তর্জাতিক » মে দিবস শুধু বিশ্ব শ্রমিক দিবসই নয় অধিকার আদায়ের দিবসও বটে !

মে দিবস শুধু বিশ্ব শ্রমিক দিবসই নয় অধিকার আদায়ের দিবসও বটে !

প্রকাশ : ১ মে ২০১৭১০:১৬:০৮ অপরাহ্ন

[pfai pfaic=”fa fauser fa-spin ” pfaicolr=”” ] মেহেরিন আক্তার নওমি, বাংলা ইনিশিয়েটর

মে দিবস অর্থাৎ ১ লা মে এক অত্যুজ্জ্বল ঐতিহাসিক চেতনার দিন। ১৮৮৬ সালের এই দিনে শ্রমিকরা তাদের ন্যায্য অধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য রক্তক্ষয়ী সংগ্রামে ঐক্যবদ্ধ হয়ে অংশ নেয়। নিজেদের অধিকার আদায়ের কথা বলতে গিয়ে বেশ কিছু মৃত্যুবরণ করেন নির্মম শাসকগোষ্ঠীর হাতে। তারা শ্রমিকগণকে পশুর ন্যায় অন্যায়ভাবে খাটাতে চেয়েছিল। কিন্তু বিপ্লবী চেতনার মানুষ এতে চুপচাপ বসে থাকেনি। তারা এই অন্যায়ের প্রতিবাদ করে।

শিল্প বিপ্লবের শুরুতে ব্রিটিশদের অধীন শ্রমিকদের ১৪ ঘন্টা অথবা তারও বেশি সময় কাজ করতে হতো। তারা এর প্রতিবাদ জানায় যার ফলে সূত্রপাত হয় শ্রমিক আন্দোলনের। এর সূত্রপাত হয় ৮ ঘন্টা কর্মদিবসের দাবীতে। তাদের এ আত্মত্যাগের ফলে বর্তমান শ্রমিকেরা তাদের ন্যায্য মজুরি,সম্মান,মর্যাদা ও অধিকার পাচ্ছে। কিন্তু একটু ভেবে দেখুন তো সমাজের নিচুস্তরের সেই দিন এনে দিন খাওয়া মজুরদের কথা,তথাকথিত ভদ্র সমাজের মানুষেরা যাদের ছোটলোক বলে আখ্যা দিয়ে থাকেন। আমরা যদিও বড় গলায় তাদের বর্তমানে ন্যায্য অধিকার পাওয়ার কথা বলছি, কিন্তু একটু খোঁজ করলেই জানা যায় তারা আজও তাদের ন্যায্য অধিকার পায় না। পায় না তাদের ন্যায্য মজুরি ও সম্মান। একটু চারপাশে চোখ বুলালেই দেখতে পাব তাদের শোষিত হওয়া,পড়তে পারব তাদের কষ্টের গল্প।

বেশিরভাগ দিক থেকে নারীরা পিছিয়ে থাকলেও শোষিত হওয়ার দিক দিয়ে তারাই সবার চেয়ে এগিয়ে। পুরুষ শ্রমিক যা মজুরি পায় নারী তার অর্ধেকও পায় না। ওভার টাইমের নাম করে স্বল্প টাকায় তাদের বেগার খাটানো হয়। অথচ মজুরি দেয়ার বেলায় অজুহাত দেখানো হয় তারা কম কাজ করেছে,তাই কম মজুরি পাবে। শুধু শ্রমিকদের ক্ষেত্রে নয়,আমরা যদি শিক্ষিত সমাজের দিকে তাকাই, তাহলেও দেখতে পাব এক করুণ দৃশ্য। সেখানেও নারীরা তাদের অধিকার থেকে বঞ্চিত। পুরুষ সহকর্মীরা সবক্ষেত্রে তাদের প্রতি সহানুভূতিশীল হচ্ছেনা। বরং তারা নারী সহকর্মীকে নিয়ে নানাভাবে হাসি-ঠাট্টা করে তাদের মনোবলকে ধ্বংস করে দিচ্ছে। এমনকি কর্মক্ষেত্রে যৌন হয়রানির শিকারও হচ্ছে অনেক নারী। এতকিছু জানার পরও কি এই ঘুণে খাওয়া সমাজের প্রতি আমরা প্রতিবাদ করতে পারিনা?

আজ সময় এসে গেছে ১লা মে-র ইতিহাসকে নতুন করে জাগ্রত করার। সেদিন যেমন নিজেদের অধিকার আদায়ের জন্য শ্রমিকরা ঐক্যবদ্ধ হয়ে আন্দোলন করেছিল, সমাজের প্রতিটি শ্রেণীর শোষিত,বঞ্চিত,নিপীড়িত মানুষেরও সেভাবে নিজেদের অধিকার আদায়ের জন্য ঐক্যবদ্ধ হয়ে সংগ্রাম শুরু করতে হবে। সচেতন হতে হবে নিজের অধিকারের প্রতি।

বাংলা ইনিশিয়েটরে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।