প্রচ্ছদ » বাংলাদেশ » আন্তর্জাতিক জাতিসংঘ শান্তিরক্ষী দিবস আজ

আন্তর্জাতিক জাতিসংঘ শান্তিরক্ষী দিবস আজ

সাব্বির রায়হান অপি, বাংলা ইনিশিয়েটর

আজ ২৯ মে, ২০০৩ সাল থেকে এই দিনটি আন্তর্জাতিক জাতিসংঘ শান্তিরক্ষী দিবস হিসাবে পালিত হয়ে আসছে। জাতিসংঘ শান্তিরক্ষী বাহিনী হিসেবে অংশগ্রহণকারী সকল পুরুষ ও নারী সদস্যকে শান্তি রক্ষার লক্ষ্যে সর্বোৎকৃষ্ট পেশাদারী মনোভাব, কর্তব্যপরায়ণতা, নিষ্ঠার সাথে দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে তাঁদের আত্মত্যাগের ঘটনাকে গভীর কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন ও স্মরণ করা হয় এই দিনে।

ইউক্রেনের শান্তিরক্ষী সংস্থা এবং ইউক্রেন সরকারের যৌথ প্রস্তাবনায় ১১ ডিসেম্বর, ২০০২ সালে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের গৃহীত ৫৭/১২৯ প্রস্তাব অণুযায়ী এ দিবসটি পালনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। ১৯৪৮ সালে সংঘটিত আরব ইসরাইল যুদ্ধ চলাকালে যুদ্ধবিরতী পর্যবেক্ষণে গঠিত জাতিসংঘ ট্রুস সুপারভিশন অর্গ্যানাইজেশন বা আন্টসো (পরবর্তীতে জাতিসংঘ শান্তিরক্ষী বাহিনী নামকরন করা হয়) ২৯ মে তারিখটি স্থির করে। এদিনে জাতিসংঘ সদর দফতরে ড্যাগ হ্যামারশোল্ড পদক বিতরণ করা হয়।জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের সভাপতি ও জাতিসংঘের মহাসচিব সংবাদ সম্মেলনে জাতিসংঘ শান্তিরক্ষী বাহিনীকে অভিনন্দন জানায় এবং তাঁদের কাজের প্রয়োজনীয়তা ও উপযোগিতার কথা তুলে ধরে থাকেন। এছাড়া সাড়া বিশ্বব্যাপি এ দিনটি পালিত হয়।

প্রায় প্রতিটি দেশ এ দিনটি যথাযথ মর্যাদায় পালনের পাশাপাশি তাদের দেশের শান্তিরক্ষি বাহিনীকে সম্মান জ্ঞাপন করে। ২০০৯ সালে লিঙ্গ-বৈষম্যের কথা বিবেচনা করে জাতিসংঘ শান্তিরক্ষায় নারীদের অবদান ও ভূমিকার উপর সবিশেষ গুরুত্ব আরোপ করা হয়। বাংলাদেশও শান্তিরক্ষা মিশন অনেক সুনাম বয়ে এনেছে ও আমাদের গৌরাবান্বিত করছে। বাংলাদেশ সেনা, নৌ ও বিমান এবং পুলিশ বাহিনী বিশ্বের বিভিন্ন দেশে শান্তি প্রতিষ্ঠার দায়িত্বপালন কর চলেছে। এই মহান দায়িত্ব পালনে এ পর্যন্ত ১০৫ জন বাংলাদেশী শান্তিরক্ষী আত্মোৎসর্গ করেছেন। এছাড়াও, দায়িত্ব পালনকালে ১১৬ জন শান্তিরক্ষী আহত হয়েছেন। তাই বাংলাদেশে ও এদিনটি যথাযথ মর্যাদায় পালন করা হয়।

>
বাংলা ইনিশিয়েটরে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।