প্রচ্ছদ » আমাদের সাহিত্য » গল্প ও প্রবন্ধ » একটি দুঃখী বইয়ের আত্মকথন

একটি দুঃখী বইয়ের আত্মকথন

খাতুনে জান্নাত

জীবনে কখনো আমাকে এতটুকু গুরুত্ব দেয়নি, একবারের জন্যেও পড়ে দেখেনি। পরীক্ষার আগের রাতে হলেও তবু অন্য বইগুলো একটু ছুঁয়ে দেখে, আমাকে তো তাও দেখে না! এ সব গ্রামার বইয়ের মডেল কোয়েশ্চেন পড়তেই তো তাদের দিন শেষ, আমার দিকে তাকানোর সময় কই? আমি অযত্নে-অবহেলায় টেবিলের কোণায়ই দুঃখীর মতো পড়ে রইলাম আজীবন!

অথচ আজ, আজ আমার ছবি সবার ফেসবুক প্রোফাইলে প্রোফাইলে! আমাকে ভালোবেসে আমাকে নিয়ে স্ট্যাটাস পর্যন্ত দিচ্ছে সবাই! শত শত লাভ রিয়েক্ট, ওয়াও রিয়েক্ট, কমেন্ট – আরও কত কী হচ্ছে সেসব পোস্টকে ঘিরে! ভাবছেন আমাকে ভালোবেসে এসব করছে সবাই? আরে নাহ্! হঠাৎ করে এত ভালোবাসা আসবে কোথা থেকে? আসল ঘটনা তো অন্য জায়গায়!

আমি, হ্যাঁ আমি এক অভাগা ইংরেজি বই। যার নাম ‘English For Today’. জীবনে কোনো ছাত্রেরই পাত্তা পাইনি। রোল ১ কিংবা ২ যাদের তারাও পর্যন্ত মডেল কোয়েশ্চেন নিয়ে ব্যস্ত থাকে, বাকীদের কথা তো ছেড়েই দিলাম! অথচ আজকে আমার ছবি দিয়ে ফেসবুক প্রোফাইল সাজাচ্ছে সবাই। কারণ, আজ ইংল্যান্ড আর অস্ট্রেলিয়ার খেলা! বাংলাদেশ চ্যাম্পিয়নস ট্রফির সেমিফাইনালে উঠবে যদি আজ অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়ে ইংল্যান্ড সেমিফাইনালে উঠতে পারে! কী অদ্ভুত ব্যাপার! সেই কারণে, শুধুমাত্র সেই কারণে দুশো বছরের ইংরেজ শাসনের ক্রান্তিকাল ভুলে প্রায় আড়াইশ’ বছর পর ষোল কোটি বাঙালী আজ চ্যাম্পিয়নস ট্রফির খেলায় ইংল্যান্ডকে সাপোর্ট করছে! বাংলাদেশ ও বিশ্বপরিচয় নামে একটা বই আমার পাশেই বসবাস করে। ওর কাছে ইংরেজ শাসনের সময়কার রোমহর্ষক বর্ণনা শুনে আমাদের সব বইয়ের তো গায়ে কাঁটা দেয়ার যোগাড়! কী আন্দোলনই না করেছিল বাঙালীরা ইংরেজদের এদেশ থেকে দূর করতে! আর আজ সেই ইংরেজদেরই সমর্থন! ভাবা যায়!

আজকের জন্য, শুধু আজকের জন্য আমি ফেসবুক সেলেব্রিটি। আমার শত শত লাইক, রিঅ্যাক্ট, কমেন্ট সবই আছে – তবে শুধু আজকের জন্য। কারণ তারা শুধু আজকেই ইংরেজদের সমর্থন করছে;যাতে টিম টাইগার সেমিফাইনালে ওঠে!

>
বাংলা ইনিশিয়েটরে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।