প্রচ্ছদ » আন্তর্জাতিক » এভারেষ্ট বিজয়ী এডমন্ড হিলারির জন্মদিন আজ

এভারেষ্ট বিজয়ী এডমন্ড হিলারির জন্মদিন আজ

সুরাইয়া আক্তার জীম | বাংলা ইনিশিয়েটর

এভারেস্টের চূড়ায় প্রথম পদচিহ্ন এঁকে দেওয়া মানুষটি হলেন এডমন্ড হিলারি। এই কিউই পর্বতারোহী ১৯১৯ সালের ২০ জুলাই নিউজিল্যান্ডের অকল্যান্ডের শহরে জন্মগ্রহণ করেন  । তার বাবার নাম ছিল পার্সিভাল অগস্টাস হিলারি ও মার নাম ছিল গার্ট্রুড ক্লার্ক। হিলারি পড়ালেখা করেছেন টুয়াকাউ প্রাথমিক বিদ্যালয় ও অকল্যান্ড গ্রামার স্কুলে । ষোল বছর বয়সে যখন বিদ্যালয় থেকে মাউন্ট রুয়াপেহু পর্বতে ভ্রমণে নেয়া হয় তখন তিনি পর্বতারোহণের প্রতি উৎসাহিত হন। আর তখন থেকেই কিশোর হিলারির স্বপ্ন ছিল তুষারশুভ্র চূড়ায় দাঁড়িয়ে মস্তবড় আকাশের কাছাকাছি বসে নিচের পৃথিবীকে দেখা। আর পরবর্তীতে তার এ সপ্নই তাকে পর্বতারোহী হতে সাহায্য করেছে।কলেজ শেষে ইউনিভার্সিটি অব অকল্যান্ড থেকে গণিতে স্নাতক ডিগ্রি নেন। এর পরপরই জীবনের প্রথম ‘মাউন্ট অলিভার’ নামক চূড়ায় উঠেন।

কিন্তু জীবিকার তাগিদে স্বপ্ন বুকে পুষেই ভাইয়ের সঙ্গে মধুর ব্যবসায় যোগ দিতে হয় তাকে । দুর্গম পার্বত্য বনভূমিতে মৌয়ালের কাজ করাটা তার নেশা হয়ে উঠে। গ্রীষ্মকালে মৌয়ালের কাজ করে যে টাকা জমাতেন সেটা নিয়ে চলে যেতেন পর্বতের দিকে। তবে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ শুরু হলে তিনি রয়্যাল নিউজিল্যান্ড এয়ার ফোর্সে যোগদান করেন। ১৯৫৩ খ্রিস্টাব্দের ব্রিটিশদের মাউন্ট এভারেস্ট অভিযানের পূর্বে তিনি ১৯৫২ খ্রিস্টাব্দে চো ওইয়ু শৃঙ্গে আরোহণের প্রচেষ্টা করে ব্যর্থ হন। সাধনা আর শ্রমকে সঙ্গী করে ১৯৫৩ সালের ২৮ মে তারা এভারেস্টের কাছাকাছি চলে যান।সহায়তাকারী দল বিদায় নিলে সামনে এগিয়ে যান দুই বন্ধু তেনজিং আর হিলারি। ২৯ মে তারিখেই তিনি এভারেস্ট জয় করেন।

পরবর্তিকালে কমনওয়েলথ ট্রান্স-অ্যাটলান্টিক অভিযানের অংশ হিসেবে তিনি ১৯৫৮ খ্রিস্টাব্দে দক্ষিণ মেরু পৌঁছেন এবং তিনি উত্তর মেরু অভিযান করলে বিশ্বের প্রথম ব্যক্তি হিসেবে পৃথিবীর দুই মেরু ও সর্বোচ্চ শৃঙ্গে পদার্পণের দুর্লভ কৃতিত্ব অর্জন করেন।

এভারেস্ট আরোহণের পর হিলারি তাঁর জীবনের অধিকাংশ সময় অতিবাহিত করেন নেপালের শেরপাদের উন্নতিকল্পে । তিনি হিমালয়ান ট্রাস্ট নামক একটি সংস্থ্যা প্রতিষ্ঠা করে তাঁদের জন্য বিদ্যালয় ও হাসপাতাল নির্মাণ করেন।

ছয় ফুট পাঁচ ইঞ্চি উচ্চতার হিলারি ২০০৮ সালের ১১ জানুয়ারি অকল্যান্ডে ৮৮ বছর বয়সে পরনোকগমন করেন ।

>
বাংলা ইনিশিয়েটরে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।