প্রচ্ছদ » খেলাধুলা » দারুন জয়েও আফসোস কোহলিদের!

দারুন জয়েও আফসোস কোহলিদের!

  সাব্বির রায়হান অপি | বাংলা ইনিশিয়েটর

পুরো ম্যাচের কোথাও তেমন লড়াই করতে পারলো না স্বাগতিক শ্রীলংকা। শুরু ভারতীয় ব্যাটসম্যানদের ঝড় আর শেষ হলো বোলারদের তান্ডবে। পুরো ম্যাচ জুড়ে কিছুই ছিল না লংকানদের পক্ষে। ফলাফল সিরিজের প্রথম ম্যাচে ৩০৪ রানের দারুন জয়। তবুও একটা আক্ষেপ থেকে যাচ্ছে যাচ্ছে কোহলি-রাহানেদের। ২০১৫ সালে দিল্লিতে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ৩৩৭ রানে জয়ের রেকর্ডটি যে আর ভাঙ্গা হলো না।

সকালে যেন ১৭তম সেঞ্চুরির আশায় নিয়েই মাঠে নামেন কোহলি। ১৯ বলেই ২৪ রানের ঝড় চুলে আরেকটি সেঞ্চুরির মালিক হয়েই ২৪০ রানে ইনিংস ঘোষণা করে দেন। বিরাটের সেঞ্চুরির ফলে ৫৫০ রানের বিরাট লক্ষ পায় হেরাথের দল। তাড়া করে জয়ের বিশ্ব রেকর্ডই যেখানে ৪১৮ রানের সেখানে অনেকটা বিপাকেই পরে লংকানরা।

বিপত্তি শব্দটা পুরো ম্যাচে লংকানদের সাথেই ছিলো। আসেলা গুনারত্নের পর অধিনায়ক রঙ্গনা হেরাথও ইনঞ্জুরির শিকার হন। ফলে ৮ উইকেট নিয়ে লংকান টিম যেন মাঠে নামার আগেই হারতে শুরু করে। এরপর শুধু ব্যাটসম্যানদের আসা যাওয়ার দৃশ্য। শুধু পঞ্চম উইকেটে দিমুথ করুণারত্নে ও নিরোশান ডিকভেলা একটু হাল ধরলেও তা যথেষ্ট ছিলো না। ১০১ রানের জুটি গড়ে ৬৭ রানে বিদায় নিলেন ডিকভেলা। করুণারত্নের একক যুদ্ধ থামে ৯৭ রানে। বাকিটুকু সেই আসা যাওয়া দৃশ্য দিয়েই শেষ হয়। ২৪৫ রানেই অলআউট হয় স্বাগতিকরা। জাদেজা ও আশ্বিন পায় তিনটি করে উইকেট।

পঞ্চাশ তম ম্যাচে বিশেষ এওয়ার্ড পান আশ্বিন। ম্যান অফ দ্যা ম্যাচ এওয়ার্ড পান প্রথম ইনিংসের সেঞ্চুরিয়ান শিখর ধাওয়ান।

ছবিঃএনডিটিভি

>
বাংলা ইনিশিয়েটরে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।