প্রচ্ছদ » খেলাধুলা » কোথায় সেই মুস্তাফিজ-তাসকিন?

কোথায় সেই মুস্তাফিজ-তাসকিন?

প্রকাশ : ২৮ অক্টোবর ২০১৭৮:৩৩:০৯ অপরাহ্ন

সাব্বির রায়হান অপি | বাংলা ইনিশিয়েটর

একটা সময় ছিল যখন বাংলাদেশ দলের বোলিং আক্রমনের মূল অস্ত্র ছিল স্পিন। দলে শফিউল-রুবেলদের মত পেসার থাকলেও ভরসা করতে হত সাকিব-রাজ্জাকদের ওপর। এখন সে সবই অতীত। মাসরাফির হাত বদলে গেছে সবকিছুই। ক্রিকেট বিশ্ব দেখেছে এক বদলে যাওয়া বাংলাদেশ। কিছুদিন আগেও বাংলাদেশের পেস বোলিং আক্রমনকে অন্যতম ভয়ানক বলে ধরা হত। পেস আক্রমনের গুরু দায়িত্ব সামলেছেন মুস্তাফিজ ও তাসকিন। সাথে তো মাসরাফি ছিলেনই। কিন্তু হঠাৎ করেই কেন যেন সব বদলে যাচ্ছে। ভয়ানক হয়ে ওঠা তো দূরের কথা ব্যাটসম্যানদের সামনে দাড়াতেই ব্যার্থ হচ্ছেন টাইগার পেসাররা।

মুস্তাফিজের মূল অস্ত্র কাটার আর তাসকিনের গতি। দুজনই তাদের আসল অস্ত্রের ব্যাবহারে ব্যার্থ। অথচ দুজনের অভিষেকই হয়েছিল রেকর্ড গড়ে। দুজনই তাদের প্রথম ওয়ানডে ম্যাচে নিয়েছে পাঁচ উইকেট। দুজনই স্বপ্ন দেখিয়েছে বাংলাদেশের ক্রিকেট প্রেমিদের। জিম্বাবুয়ে-আফগানিস্তানের পর পাকিস্তান, দক্ষিন আফ্রিকা, ভারতের মত বড় দলগুলোও মুস্তাফিজদের সামনে মাথানত করতে বাধ্য হয়েছে। কিন্তু হঠাৎ করেই হারিয়ে গেছে সেই সেই বোলিংয়ের ধার। ঘরের মাটিতে অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে প্রথম টেস্টে জয় পেলেও তা শুধুমাত্র স্পিনারদের পারফর্মেন্সে। দ্বিতীয় টেস্টে অসহায় আত্মসমার্পন করতে বাধ্য হয়েছে টাইগাররা। দক্ষিন আফ্রিকাতেও সেই বেদনা ভরা দৃশ্য। টেস্টে ইনিংস ব্যাবধানে এবং ওয়ানডেতে দশ উইকেটে সহ সবগুলো ম্যাচেই পরাজয়ের স্বাধ পেয়েছে বাংলাদেশ। আর এমন পরিস্থিতির মূল কারন পেস বোলিংয়ে বাজে পারফর্মেন্স।

এমন অবস্থায় ভাবনায় পরে গেছেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান। তবে সব ঠিক হয়ে যাবার আশা করছেন তিনি। তিনি বলেন, “শুরু থেকে দেখেছি, তাসকিন জোরে বোলিং করে। হঠাৎ করে তার লাইন এবং লেংথ একদমই খারাপ হয়ে গেছে। শুধু এই সিরিজে নয়, আগে থেকেই এটা হচ্ছে। গতিটাও আগের চেয়ে কমে গেছে। ওর কিছু একটা সমস্যা হয়েছে। কী সমস্যা, সেটা দেশে ফেরার পর দেখা হবে। আরেকজন বোলার হচ্ছে মোস্তাফিজ। সন্দেহ নেই, সে আমাদের সেরা পেসার। ওর বোলিং কিন্তু খারাপ হচ্ছে না। তবে কাটার আর আগের মতো হচ্ছে না। লাইন-লেংথ-গতি ঠিক আছে। আমাদের বলা হয়েছিল আগের অবস্থায় আসতে ওর এক বছর লাগবে। মোস্তাফিজকে নিয়ে আমার চিন্তা নেই। আশা করি, শিগগিরই সে ফিরে আসবে।” তবে অন্যান্য বোলারদের মধ্যে রুবেল-মাসরাফিরা ঠিক পথেই আছেন বলে নাজমুল মনে করেন।

নিজ বাসভবনে সংবাদ মাধ্যমের সামনে এ বিষয়ে বলার পরে দক্ষিন আফ্রিকা সিরিজের প্রথম টিটোয়েন্টি ম্যাচ নিয়েও বলেন বিসিবি সভাপতি। তিনি বলেন, “যে বাংলাদেশকে দেখে আসছি, সেই দলের সঙ্গে মিল খুঁজে পাচ্ছিলাম না। দলের মনোভাব কেমন যেন লাগছিল। এই ম্যাচের আগে ওদের বললাম যে বাংলাদেশকে চিনি, সেভাবে খেল। এত বড় ব্যবধানে হারছি, সেটা বড় ব্যাপার নয়। তবে খেলার আগেই মনে হচ্ছে, খেলাটা ছেড়ে দিচ্ছি। আমরা যে প্রতিপক্ষকে চ্যালেঞ্জ করতে পারি, সেটা দেখা যাচ্ছে না। বলেছি, ওদের প্রতিমুহূর্তে চ্যালেঞ্জ ছোড়াটা দেখতে চাই। এতে করে কাল খেলাটা ভালো হয়েছে।”

ম্যাচ শেষে টিটোয়েন্টি অধিনায়ক সাকিবকে অভিনন্দনও জানিয়েছেন। খেলা শেষে সাকিবকে এসএমএস পাঠায়েছেন ‘ওয়েল প্লেইড’ লিখে। পরে সাকিবের সাথে কথা হলে, সাকিব প্রশ্ন করেন, “আপনি ‘‘ওয়েল প্লেইড’’ বললেন, কিন্তু আমরা তো জিততে পারেনি। উত্তরে নাজমুল কি বলেছেন তা অবশ্য জানা যায় নি।

বাংলা ইনিশিয়েটরে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।