প্রচ্ছদ » অনিয়ম » স্কুলের পাশেই ময়লার ডাস্টবিন!

স্কুলের পাশেই ময়লার ডাস্টবিন!

প্রকাশ : ৩০ অক্টোবর ২০১৭২:০৮:৪৮ অপরাহ্ন

অহিদা আক্তার ফাবিয়া | বাংলা ইনিশিয়েটর

রাজধানীর স্বনামধন্য স্কুলগুলোর একটি মনিপুর উচ্চ বিদ্যালয় এন্ড কলেজ (মূল বালক শাখা) মিরপুর -২, যেটি গড়ে উঠেছে ৬০ ফিট রাস্তার উপরেই। এই ৬০ ফিট মূল রাস্তা হওয়ার কারণে শিক্ষার্থীদের যাতায়াত বাবস্থার উন্নতি হলেও সুন্দর হয়নি পরিবেশ। এই রাস্তার পাশেই রয়েছে ৭-৮ টি বড় বড় ময়লার ডাস্টবিন। যার মধ্যে ৩ টিই স্কুলের একেবারে পাশে অবস্থিত। ৬০ ফিট রাস্তা হওয়ার প্রথম কয়েক মাসে রাস্তা পরিষ্কার থাকলেও বর্তমানে এটির দিকে গুরুত্ব দেওয়া হয় না। সিটি কর্পোরেশন থেকে পরিষ্কার করার কথা বলেলেও মাসে ১ বা ২ বার রাস্তাটি পরিষ্কার করা হয়। যার ফলে স্কুলের পাশের এই ডাস্টবিন থেকে সবসময় দুর্গন্ধ ছড়াতে থাকে।রাস্তার পাশের প্রায় অর্ধেক জায়গা জুড়ে এই ডাস্টবিনগুলো থাকায় যাতায়াতের ক্ষেত্রেও এটি সমস্যা করছে। অনেক শিক্ষার্থীদের অভিযোগ প্রতিদিন তাদের ময়লার উপর বা পাশ দিয়ে স্কুলে যেতে হয়। আবার রাস্তার পাশেই গড়ে উঠেছে বিভিন্ন খাবারের দোকান ও রেস্টুরেন্ট। এসব দোকানের খাবারের মান নিয়েও অভিভাবকদের মনে সন্দেহ আছে। নাসরিন সুলতানা নামে একজন অভিভাবক জানান, “সিটি কর্পোরেশনের লোকদের মাঝে মাঝে রাস্তায় দেখা গেলেও তারা শুধুমাত্র ডাস্টবিনের ময়লাটুকু সরানো ছাড়া আর কিছুই করে না। পুরো রাস্তাটি এখন অবধি একবারও পরিষ্কার করা হয়নি। বহুবার ডাস্টবিন সরানোর অনুরোধ জানানো হলেও তা বাস্তবায়নের জন্য কোনো বাবস্থা নেওয়া হয়নি।”

৬০ ফিট রাস্তায় বাস চলাচল নিষেধ থাকলেও প্রায়সময়ই খালি বাসগুলোকে তাদের গন্তব্য স্থানে পৌঁছানোর জন্য এই রাস্তা ব্যাবহার করতে দেখা দেয়। যার ফলে যানজটের সৃষ্টি হয়। যানবাহনের শব্দে ঠিকমতো ক্লাস নিতে পারেন না বলে জানিয়েছেন ছাত্র ও শিক্ষকরা। স্কুলের একজন শিক্ষক (রিয়াজুল ইসলাম) জানান, “সকাল বেলা প্রচুর জ্যাম থাকায় শিক্ষার্থীরা নিয়মিত স্কুলে উপস্থিত হতে পারি না।”

আবার ফুটপাতে বিভিন্ন দোকান থাকায় পথচারীরা ফুটপাত দিয়েও হাঁটতেও পারেন না। যার ফলে বাধ্য হয়ে তাদের মূল সড়ক ব্যবহার করতে হয়।

সম্পর্কে ঐ ওর্য়াডের কাউন্সিলের সাথে কথা বললে তিনি জানান, “১৩ নম্বর ওর্য়াডে ময়লার গাড়িগুলো রাখার যথাযথ জায়গা না থাকার কারণে এ সমস্যাটি হচ্ছে।”

তারা এই সমস্যা নিয়ে শীঘ্রই কাজ শুরু করবেন বলে জানান তারা। বিভিন্ন শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও এখানে বসবাসকারী সবার অভিযোগ সত্ত্বেও গত প্রায় ১ বছর ধরে এই রাস্তাটি এভাবেই নোংরা ও অপরিস্কার হয়ে আছে।

বাংলা ইনিশিয়েটরে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।