প্রচ্ছদ » খেলাধুলা » ব্যাটিং ঝড়ে জয় পেলো ঢাকা ডায়নামাইটস!

ব্যাটিং ঝড়ে জয় পেলো ঢাকা ডায়নামাইটস!

প্রকাশ : ৫ নভেম্বর ২০১৭১১:০৫:২৫ অপরাহ্ন

সাব্বির রায়হান অপি | বাংলা ইনিশিয়েটর

টস জিতে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন খুলনা টাইটানসের অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ। কিন্তু এরপরই সব কিছু যেন তার হাত থেকে বেড়িয়ে যেতে শুরু করলো। ব্যাটিং অর্ডার বদলে মাঠে নামলেন সাঙ্গাকারা ও এভিন লুইস। ড্রেসিং রুম থেকেই যেন সেট হয়ে এসেছিলেন দুই ব্যাটসম্যান। চার-ছক্কার ঝড় তুলতে গিয়ে অবশ্য বেশি সময় টিকে থাকতে পারেননি শ্রীলংকান কিংবদন্তি সাঙ্গাকারা। ২০ রান করে চতুর্থ ওভারের শেষ বলে কট বিহাইন্ড হন তিনি। উইকেট পান শফিউল।

সাঙ্গাকারার বিদায়ের পর মাঠে নামেন ক্যামেরন ডেলপোর্ট। মাঠে নেমেই ঝড় তুলতে শুরু করেন দক্ষিন আফ্রিকার এই ব্যাটসম্যান। এভিন লুইসের সাথে রূপকথার জুটি গড়ে দুজনে। ৩৮ রান থেকে দলের সংগ্রহকে নিয়ে যায় ১৫৪-তে। তাও মাত্র ১৩ ওভারে। ৪০ বলে ৬৬ রানের ভয়ানক ইনিংস খেলে শফিউলের বলে মাহমুদউল্লাহকে ক্যাচ দিয়ে ইনিংসের সমাপ্তি টানেন। ইনিংসটিতে ছিল ৭টি বাউন্ডারি এবং ৩টি ওভার বাউন্ডারির মার। সঙ্গিকে হারিয়ে ডেলপোর্টও থাকতে পারেননি বেশি সময়। ৪টি বাউন্ডারি এবং ৫টি ওভার বাউন্ডারি দিয়ে গড়া ৩১ বলে ৬৪ রানের অসাধারন ইনিংসটি শেষ করেন আবু যায়েদের বলে এলবিডব্লিউ হয়ে।

এরপর আর কেউই তেমন কিছু করতে পারেননি। তবে নারাইন আর মোসাদ্দেকের ছোট ছোট অবদানে শেষ পর্যন্ত ২০২ রানের পাহাড় তুলে ধরে ঢাকা ডায়নামাইটস। দিনটি হয়তো ভূলে যেতেই চাইবে খুলনার বোলাররা। তবে আবু যায়েদ ও শফিউল পেয়েছেন দুটি করে উইকেট। ইনিংস শেষে এতটুকু প্রাপ্তি নিয়েই ইনিংস ব্রেকে যায় টাইটানসরা।

রানার বিশাল পাহাড় জয় করতে গিয়ে শুরুতেই পা পিছলে যায় খুলনা টাইটানসের। শুরুতেই আবু হায়দার রনি তুলে নেন নাজমুল হোসেন শান্তকে। পরের ওভারেই কার্লস ব্রাথওয়াইটকে তুলে নেন সাকিব। এরপর ওয়ালটন ও রাইলি রুশো মিলে সতর্ক ব্যাটিং শুরু করেন। কিন্তু তাতেও লাভ হল না। দলীয় ৪৩ রানে ওয়ালটের রূপে খুলনা পায় তৃতীয় আঘাত। আর আঘাতটি দেন অধিনায়ক সাকিব নিজেই। সপ্তম ওভারে আবার আক্রমন করে আবু হায়দার রনি। অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহকে নিজের ক্যাচ বানিয়ে টাইটানসেরদের মেরুদন্ড ভেঙ্গে দেন এই তরুন বাহাতি। এরপর যেন প্রতি ওভারেই উইকেট পেতে শুরু করল ঢাকা। অষ্টম ওভারে রুশোকে ফেরান শহিদ। ১৪ বলে ২৩ রান করে এখানেই বিদায় নেন এই পোর্টিয়া ব্যাটসম্যান। এক ওভারের ব্যাবধানে আরিফুল হক ও ধনঞ্জয়ার উইকেট তুলে নেন খালেদ আহমেদ। শেষ সময়ে জোফরা আর্চার ও মোসারফ হোসেন ছোট জুটি গড়লেও তা শুধু ব্যাবধানই কমাতে পেরেছে। ১৭তম ওভারে জোফরা আর্চারের উইকেট তুলে নেন নারাইন এবং পরের ওভারেই মোসারফ হোসেনের উইকেট তুলে নেন আবু হায়দার রনি। ১৯তম ওভারে শফিউলের শেষ উইকেট তুলে নেন নারাইন। যার ফলস্বরুপ ৬৫ রানের বিশাল জয় পায় ডাকা ডায়নামাইটস।

বাংলা ইনিশিয়েটরে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।