প্রচ্ছদ » খেলাধুলা » সহজ জয় দিয়েই বছরটা শুরু করলেন সাকিব-তামিমরা!

সহজ জয় দিয়েই বছরটা শুরু করলেন সাকিব-তামিমরা!

প্রকাশ : ১৫ জানুয়ারী ২০১৮৬:৪৩:১২ অপরাহ্ন

সাব্বির রায়হান অপি | বাংলা ইনিশিয়েটর

সে যেই হোক, টসে জিতে ফিল্ডিং নিবেন তা আগে থেকেই বোঝা যাচ্ছিল। কুয়াশা আচ্ছন্ন ঢাকায় ত্রিদেশীয় সিরিজের প্রথম ম্যাচে টসে জিতে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন মাসরাফি। ৩ পেসার নিয়ে মাঠে নেমে শুরুতেই স্পিন আক্রমন করে চমকে দেন। জোড়া উইকেট নিয়ে অধিনায়কের সিদ্ধান্তকে সঠিক প্রমান করেন সাকিব। ১ম বলেই সোলেমন মিরকে স্টাম্প এবং ৩য় বলে ক্রাইগ এরভিনকে সাব্বিরের ক্যাচ বানান সাকিব। এরপর মাসাকাদজা ও ব্রেন্ডন টেইলর একের পর এক ডট বল খেলে মাঠ আকড়ে থাকলেও ৮ম ওভারে উইকেটের পেছনে মুশফিকের ক্যাচ বানিয়ে ফেরান মাসরাফি। এরপর শুরু হয়ে টেইলর-রাজার সতর্ক ব্যাটিং। দলীয় ৫১ রানে টেইলারকে ফেরান মুস্তাফিজ।

জিম্বাবুয়ের হয়ে এক প্রান্ত আগলে রেখে ব্যাটিং করে গেছেন সিকান্দার রাজা। কিছুদিন আগেই বিপিএলে অসাধারন ইনিংস খেলেছিলেন রাজা। তাই পরিচিত মাঠে ব্যাটিংটা একটু হলেও সহজ ছুল তার জন্য। কিন্তু বাকিদের জন্য রান করা তো দূরের কথা প্রতিটা বলের মুখোমুখি হওয়াই যেন ছিল চ্যালেন্জিং। ২৬তম ওভারের ৪র্থ বলে ওয়ালারকে সাব্বিরের ক্যাচ বানান সানজামুল। এরপর রাজার সাথে জুটি বাঁধেন পিটার মোর। পুরো ম্যাচে এই জুটিই যেন কিছুক্ষনের জন্য জিম্বাবুয়ের সমর্থকদের শান্তনা দিতে পেরেছিল। কিন্তু তা হতে দিলেন না সাকিব। এবার বোলীর সাকিব নয়, ফিল্ডার সাকিব। জিম্বাবুয়ের একমাত্র ভরসা রাজাকে ফিরিয়ে পুরো ম্যাচে নিজেদের কতৃত্ব নেন সাকিব। এর আগে ৯৯ বলে ৫২ রান করেছেন সাকিব। ২টি করে চার-ছয়ও মেরেছেন। কিছুক্ষন পরে বল হাতে এসে শেষ আশাটুকুও নিভিয়ে দেন সাকিব। জিম্বাবুয়ের অধিনায়ক জেরাম ক্রেমারকে রুবেলের তালুবন্ধি করেন তিনি। এরপর আসে রুবের জোড়া আক্রমন। পর পর দুই বলে তুলে নেন মোর ও চাতারার উইকেট।
মুজারাবানিকে ফিরিয়ে জিম্বাবুয়ের কফিনের শেষ পেরেকটা ঢুকে দেন মুস্তাফিজ।

১৭১ রানের জবাব দিতে তামিমের সাথে ব্যাটিংয়ে নামেন এনামুল হক। শুরুটা অসাধারন হলেও দ্রুতই ফিরে যান তিনি। দীর্ঘদিন দলের বাইরে থেকে ঘরোয়া ক্রিকেটের পার্ফরমেন্সের পুরষ্কার হিসেবে দলে আসেন এনামুল। নিজের প্রথম বলেই বাউন্ডারি মেরে আক্রমনাত্নক রূপের সতর্কবার্তা দেন এনামুল। কিন্তু অতিরিক্ত আক্রমনাত্নক হবাব ফলেই ব্যার্থ হন। ব্যাক্তিগত ১৯ রানে রাজার বলে বড় শট খেলতে গিয়ে ক্রাইগ এরভিনকে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন বিজয়। এরপর অনুমিতভাবেই তিনে ব্যাটিং করতে আসেন সাকিব। তামিমের সাথে অসাধারন জুটি গড়েন তিনি। সাকিব-তামিমের অভিজ্ঞ জুটির ব্যাটিংয়ে বেশ ভালোভাবেই ছোট লক্ষ তাড়া করতে শুরু করে টাইগার দল। দুজন ৫০ রানের জুটিও গড়েন।

এদিকে ব্যাটিংয়ের পর বোলিংয়েও পুরো জিম্বাবুয়ের হয়ে একাই লড়াই করেছেন রাজা। এবার সাকিবকে ফেলেন এলবিডব্লিউর ফাঁদে। ৪৬ বলে ৩৭ রান করে ফেরেন সাকিব। বাকি কাজটুকু শেষ করতে তামিমকে সঙ্গ দিতে আসেন মুশফিক। তবে শেষ সময়ে দ্রুত ম্যাচ শেষ করতেই যেন চাচ্ছিলেন এই ম্যাচেই জিম্বাবুয়ের হয়ে অভিষেক করা মুজারাবানি। শেষ সময়ে এক ওভারে ৪টি নো বল করেন তিনি।

ত্রিদেশীয় সিরিজের ১ম ম্যাচে ৮ উইকেটের সহজ জয় পায় বাংলাদেশ। ম্যাচ সেরা হন সাকিব আল হাসান। ম্যাচ শেষে তামিমের পাশাপাশি তৃতীয় ব্যাটসম্যান হিসেবে মাঠে নামা সাকিবের প্রশংসা করেন অধিনায়ক মাসরাফি। আগামি ১৭ জানুয়ারি দ্বিতীয় ম্যাচে জিম্বাবুয়ের মুখোমুখি হবে শ্রীলংকা।

বাংলা ইনিশিয়েটরে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।