প্রচ্ছদ » খেলাধুলা » সিনিয়রদের সাথে ঝামেলা নয়, পারিবারিক কারনে চলে যাচ্ছেন হ্যালসল!

সিনিয়রদের সাথে ঝামেলা নয়, পারিবারিক কারনে চলে যাচ্ছেন হ্যালসল!

প্রকাশ : ১ মে ২০১৮৩:৩৫:১২ অপরাহ্ন

সাব্বির রায়হান অপি | বাংলা ইনিশিয়েটর

মাস দুয়েক আগেই বিসিবিতে পদত্যাগ পত্র দিয়েছেন বাংলাদেশের সম্প্রতি সাবেক হওয়া সহকারী কোচ রিচার্ড হ্যালসল। শুরু থেকেই ঘটনার কারন হিসাবে দলের সিনিয়রদের অপছন্দের কথা থাকলেও তা আড়াল করেছেন রিচার্ড। কাল বিসিবিতে এসেছিলেন শেষ বিদায় জানাতে আর আনুষ্ঠানিক কাজটুকু শেষ করতে। শেষ সময়ে বাংলাদেশ ক্রিকেটকে এগিয়ে নিয়ে যেতে কিছু উপায়ও বলে দিয়ে গেলেন ২০১৪ সালে বাংলাদেশের ফিল্ডিং কোচ হয়ে নিযুক্ত হওয়া রিচার্ড হ্যালসল।

ঘটনার শুরু হয় দেশের মাটিতে সর্বশেষ ত্রিদেশীয় সিরিজে। প্রধান কোচ চন্ডিকা হাথুরুসিংহে বিদায়ের পর দলের দায়িত্ব নেন দলের সিনিয়র ক্রিকেটার, সহকারী কোচ রিচার্ড হ্যালসল ও ডিরেক্টার খালেদ মাহমুদ সুজন। গুঞ্জন রয়েছে তখনই নাকি দলের সিনিয়রদের সাথে মতের ভিন্যতা তৈরী হয় হ্যালসলের। এছাড়া হাথুরুসিংহের সাথে ভুল বোঝাবুঝিতে তারই ষড়যন্ত্র ছিল এমন কথাও সামনে আসে। তাই নিদাহাস ট্রফিতে তাকে ছুটিতে রাখা হয়। যা বাধ্যতামূলক ছিল বলে ধারনা করা হচ্ছে। বিসিবি তার প্রতি বিরক্ত তা বুঝতে পেরে নিজেই পদত্যাগ পত্র পাঠান।

তবে এসব গুঞ্জনকে মিথ্যা বলেন হ্যালসল। তিনি পদত্যাগের কারন হিসাবে বলেন পারিবারিক সমস্যার কথা। পরিবারের কাছাকাছি থাকতেই এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বলে জানান। তিনি বলেন, ” এখানে আসার কারন সকলকে ধন্যবাদ জানানো। এখানে যেই সময়টা পার করেছি তার জন্য বোর্ডের সকলকে ধন্যবাদ, কথা হয়েছে প্রধান নির্বাহির সাথে। আমি যা করতে ভালোবাসি তারা আমাকে তাই করতে দিয়েছেন।”

গুঞ্জনগুলো নিয়ে প্রশ্ন করা হলে, রিচার্ড তার উত্তরে বলেন, “দলের সিনিয়রদের নিজস্ব মতামত থাকতে পারে। তবে আমার সঙ্গে তাদের কোন সমস্যা নাই। আমার জানা নেই। তবে আমি দলের জন্য সবসময় সেরাটা দিতেই চেয়েছি।”

শেষ সময়ে বাংলাদেশ দলের জন্য একটি উপদেশও দিয়ে যান হ্যালসল। তিনি সিনিয়রদের পাশাপাশি তরুনদের প্রতি গুরুত্ব দিতে বলেন। যেখান বাংলাদেশ দল সিনিয়রদের উপর নির্ভরশীল, সেখানে তিনি জুনিয়রদের পার্ফরমেন্সের প্রতি গুরুত্ব দিতে বলেন। তিনি বলেন, “এই দলে ভালো কয়েকজন সিনিয়র ক্রিকেটের আছে। কিন্তু শুধু তাদের দিয়েই আন্তর্জাতিক পর্যায়ে ধারাবাহিকভাবে ম্যাচ জেতা যাবে না। আরও ক্রিকেটার তুলে আনতে হবে। সেটিই আমার পরামর্শ। সিনিয়রদের পাশাপাশি উঠতিদের সামর্থ্যটা বের করে আনতে হবে।”

বাংলাদেশ দলের অধারাবাহিক পার্ফরমেন্সের সমাধানের জন্য তিনি হাই পারফর্মেন্স দল ও ‘এ’ দলকে আরো শক্তশালী করার পরামর্শ দেন। তাদের ম্যাচ বাড়াতে বলেন। তাহলেই ভালো দল হিসাবে ধারাবাহিক পারফর্মেন্স করতে পারবে বাংলাদেশ দল। বাংলাদেশকে বিদায় জানানোর পর তার নতুন গন্তব্য ইংল্যান্ডের কাউন্টি দল সাসেক্স।

বাংলা ইনিশিয়েটরে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।