প্রচ্ছদ » খেলাধুলা » চার-ছক্কার ঝড়ে বৃষ্টি আইনে জিতলো দিল্লি ডেয়ারডেভিলস!

চার-ছক্কার ঝড়ে বৃষ্টি আইনে জিতলো দিল্লি ডেয়ারডেভিলস!

প্রকাশ : ৩ মে ২০১৮২:১১:৩৩ পূর্বাহ্ন

সাব্বির রায়হান অপি | বাংলা ইনিশিয়েটর

পুরো ম্যাচটিতেই ছিল বৃষ্টির আধিপত্য। টসের পরেই বৃষ্টি শুরু হয়ে গেলে, বৃষ্টি আইনে ২ ওভার কমিয়ে ১৮ ওভারে ম্যাচ করার সিদ্ধান্ত নেন ম্যাচ অফিসিয়ালরা। সেই বৃষ্টির আবার আক্রমনে ১৭.১ ওভারেই শেষ হয় প্রথম ইনিংস। ২য় ইনিংস হয় মাত্র ১২ ওভারের। তবে বৃষ্টি যেন বাড়িয়ে দিয়েছিল ম্যাচের উত্তাপ। দিনে দিনে সংক্ষিপ্ত হতে থাকা ক্রিকেটের ভয়ানক রূপটাই দেখা গেল ফিরোজ শাহ কোটলায়। চার-ছক্কার আসল ঝড় যেন এটিকেই বলে।

টসে জিতে বোলিংয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন রাজস্থান রয়েলসের অধিনায়ক আজিঙ্কা রাহানে। ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুতেই মনরোকে হারালেও আক্রমনাত্মক শুরু করে দিল্লি। পৃথিবী-শ্রেয়াসের জুটিটি ছিল ৭৩ রানের, বল খরচ হয়েছে মাত্র ৪০টি। পৃথিবী বিদায় নেন ২৫ বলে ৪৭ করে। ৪টি করে চার ও ছয় শ্রেয়াস গোপালের বলে ‘কট এন্ড বোল্ড’ হন। পৃথিবীর বিদায়ের পর মাঠে নামা রিসাব পান্ত ছিলেন আরো ভয়ানক। অন্যপ্রান্তে থাকা শ্রেয়াস দিয়ে যোগ্য সঙ্গ। দুজনের ৯২ রানের জুটি ভাঙ্গে ১৫তম ওভারে, উনাদকাটের জোড়া আক্রমনে বিদায় নেন দুজনই। শ্রেয়াস ৩টি করে চার-ছক্কায় করেছেন ৩৫ বলে ৫০। অন্যদিকে ৭ চার ও ৫ ছক্কায় ২৯ বলে ৬৯ করে পান্তের ঝড় থামে স্টোকসের তালুবন্ধি হয়ে।

টুর্নামেন্টের অন্য ম্যাচগুলোর মত ম্যাক্সওয়েল আবারও ব্যার্থ হলেও ৬ বলে ১৭ করে শেষ কাজটা করেন বিজয় শংকর। বল হাতে সবচেয়ে সফল ছিলেন সবচেয়ে দামি ভারতীয় আনক্যাপ বোলার উনাদকাট। ৪৬ রান দিয়ে নিয়েছেন ৩ উইকেট। ১৭.১ ওভারে প্রথম ইনিংস বৃষ্টির জন্য থামানো হলে, পরে তা সেখানেই শেষ করা হয়। বৃষ্টির লম্বা বিরতির পর ২য় ইনিংস শুরু করা। ওভার আরো কমিয়ে ১২তে নিয়ে আসা হয়। জিততে হলে রাজস্থানকে করতে হতো ৭২ বলে ১৫১।

রাজস্থান ইনিংস শুরু করতে মাঠে নামেন দুই আক্রমনাত্মক ব্যাটসম্যান ডার্সি শট ও জস বাটলার। কঠিন কাজটাই সহজ মনে হচ্ছিল বাটলারের ব্যাটিংয়ে। একের পর এক, মেরেছেন ৭টি ছক্কা! সাথে ৪টি চারও ছিল। এই ইংলিশ ব্যাটসম্যানের ২৬ বলে ৬৭ রানের ইনিংসে জয়ের স্বপ্নই দেখছিল রাজস্থান। তবে বেশি আক্রমনাত্মক হতে গিয়ে অমিত মিশ্রার বলটিকে এগিয়ে মারতে গিয়ে পান্তের স্টাম্পিংয়ের শিকার হন। শুরুটা ধীর গতিতে করলেও বাটলারের বিদায়ের পর খোলশ ছেড়ে বের হন ডার্সি শট। অন্যপ্রান্তে জোড়া আক্রমনে স্যামসন ও স্টোকসকে ফেরান ট্রেন্ট বোল্ট।

১০০ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে বিপাকে পরে যায় রাজস্থান। এমন সময় ম্যাক্সওয়েলের হাতে বল দেন অধিনায়ক শ্রেয়াস। ম্যাক্সওয়েলের প্রথম তিন বলে ৩টি ছক্কা মারেন ডার্সি শট। ৪র্থ বলে মারতে গিয়ে ধরা পরেন আভেস খানের হাতে। ৪টি ছয় ও ২টি চারে ২৫ বলে ৪৪ রানের ইনিংস এখানেই শেষ এরপর একের পর এক ডট বলে খেলে ম্যাচ হারাতে বসে রাজস্থান। বাধ্য হয়ে ঝুকিপূর্ণ রান নিতে গিয়ে রান আউট হন ত্রিপাঠি।

শেষ দুই বলে ১০ রানের প্রয়োজন ছিল। প্রথম বলটি উঠিয়ে মারলে একটুর জন্য তা ধরতে পারেননি শ্রেয়াস। বাউন্ডারি লাইনের কাছে গিয়ে মাটি ছুয়ে চার হয়। শেষ বলে ৬ রানের হিসাবটা মেলাতে পারেননি গৌতম। তার ৬ বলে ১৮ রানের পরেও হেরে যায় রাজস্থান রয়েলস।

বৃষ্টি আইনে ৪ রানের শ্বাসরুদ্ধকর জয় পায় দিল্লি ডেয়ারডেভিলস। রানের হিসাবে এটি ছিল আইপিএল ইতিহাসের তৃতীয় সবচেয়ে কম ব্যাবধানে জয়। অসাধারন ব্যাটিংয়ের জন্য ম্যাচ সেরার পুরস্কার পান রিসাব পান্ত। সেই সাথে ৯ ম্যাচে ৩৭৫ রান করে অরেঞ্জ ক্যাপের মালিকও এই উইকেট কিপার ব্যাটসম্যান। ৯ ম্যাচে ১৩ উইকেট নিয়ে পার্পেল ক্যাপ পরেন ট্রেন্ট বোল্ট।

কাল বাংলাদেশ সময় ৮টা ৩০ মিনিটে ইডেন গার্ডেনে চেন্নাই সুপার কিংসের মুখোমুখি হবে কলকাতা নাইট রাইডার্স।

বাংলা ইনিশিয়েটরে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।