প্রচ্ছদ » খেলাধুলা » আরেকটি শ্বাসরুদ্ধকর ম্যাচ : এবার হাসলো মুম্বাই!

আরেকটি শ্বাসরুদ্ধকর ম্যাচ : এবার হাসলো মুম্বাই!

প্রকাশ : ৫ মে ২০১৮১:০৩:৩৪ পূর্বাহ্ন

সাব্বির রায়হান অপি | বাংলা ইনিশিয়েটর

গতবারের চ্যাম্পিয়নরা এবার টেবিলের তলানিতে। টুর্নামেন্টের শুরু থেকেই প্রতিটি ম্যাচেই আশা জাগিয়েও হতাশ করছে মুস্তাফিজের দল। শ্বাসরুদ্ধকর ম্যাচগুলো শেষ সময়ে মুম্বাইয়ের হাত থেকে ম্যাচ ছিনিয়ে নিয়েছে প্রতিপক্ষ। আজ পাঞ্জাবের সাথে ম্যাচটিও ছিল শ্বাসরুদ্ধকর। একটা সময় ম্যাচ প্রায় বেড়িয়ে যাচ্ছিল মুম্বাইয়ের হাত এমন সময়ে শেষ ১৮ বলে ৩৬ রানের হিসাবটা মিলিয়ে ফেলেন ক্রুনাল ও রহিত জুটি।

টসে জিতে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন মুম্বাই অধিনায়ক রহিত শর্মা। ব্যাটিংয়ে নেমে আরো একবার ভালো শুরু এনে দেন গেইল-রাহুলের উদ্বোধনি জুটি। সতর্ক ব্যাটিং করে পাওয়ারপ্লে শেষ করেন। ৫৪ রানের জুটি ভাঙ্গে তরুন মারকান্দের বলে ডুমিনিকে ক্যাচ দিয়ে রাহুল ফিরে গেলে। ২০ বলে ২৪ রান করেছেন এই উইকেট-রক্ষক ব্যাটসম্যান। অন্যপ্রান্তে গেইল খেলেন দায়িত্বশীল ইনিংস। স্লো উইকেটে স্বভাবসূলভ আক্রমনাত্মক ব্যাটিং না করে ধীরে খেলেন এই ক্যারিবিয়ান। ৪০ বলে ৫০ রান করে বেন কাটিংয়ের বলে সুরিয়াকুমার যাদবকে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন। তার ইনিংসে ছিল ৬টি বাউন্ডারি ও ২টি ওভার বাউন্ডারি।

নাম্বার ৩-এ সুযোগ পেয়েও ব্যার্থ একসময়ের টি-টোয়েন্টির আতঙ্ক যুবরাজ সিং। শুরু থেকেই ব্যাট হাতে সাচ্ছন্দে ছিলেন না এই হার্ড হিটার। ১৪ বলে ১৪ করে যুবরাজ বিদায় নিলেন আক্রমনাত্মক ব্যাটিং করছিলেন করুন নাইয়ার। তবে তিনিও বড় ইনিংস খেলতে ব্যার্থ। ২টি ছক্কা ও ১টি চারে ১২ বলে ২৩ করে ম্যাকলেনাগানের বলে হার্দিককে ক্যাচ দিয়ে প্যাভিলিয়নে ফেরেন। ব্যাটিং অর্ডারে উপরে সুযোগ পেয়েও ব্যার্থ আক্সার পাটেল। বুমরার বলে হার্দিককে ক্যাচ দেন ১২ বলে ১৩ করে। তবে শেষ সময়ে পাঞ্জাবের ইনিংস মেরামত করেছেন মার্কাস স্টয়নিস। ১৫ বলে ২৯ রান করা এই অজিকে সঙ্গ দেন ৭ বলে ১১ করা মায়াঙ্ক আগারওয়াল। শেষ সময়ে ছোট ভাই হার্দিকের বলে বড় ভাই ক্রুনালকে ক্যাচ দিয়ে মায়াঙ্ক ফিরলেও অপরাজিত ছিলেন স্টয়নিস। দুইজনের ক্যামিওতে ৬ উইকেটে ১৭৪ রানের সংগ্রহ পায় কিংস ইলেভেন পাঞ্জাব।

জবাবে ব্যাট করত নেমে ষষ্ঠ ওভারে প্রথম ধাক্কা খায় মুম্বাই। আফগান স্পিনার মুজিবের বলটি লুইসের ব্যাট ছুয়ে রাহুলের হাতে। ১৩ বলে ১০ করে ফেরেন এই ক্যারিবিয়ান। ২য় উইকেটে সুরিয়াকুমার ও ইসানের ৪২ রানের জুটিতে জয়ের পথ দেখতে শুরু করে মুম্বাই। এবার বল হাতে আবার সামনে এসে দাড়ায় স্টয়নিস। ৬ চার ও ৩ ছয়ে ৪২ বলে ৫৭ করা সুরিয়াকুমার যাদবকে ফেরায় উইকেটের পেছনে রাহুলের তালুবন্ধি করে। পরের ওভারে আবার আক্রমন করেন মুজিব। ১৯ বলে ২৫ করা ইসান কিসানকে ফেরান বোল্ড করে।

এরপর রহিত-হার্দিক জুটি সতর্ক ব্যাটিং করলেও, আসল বিপত্তি শুরু হয় ১৩ বলে করা হার্দিকের উইকেট এন্ড্রু তায় ভেঙ্গে দিলে। শেষ সময়ে রান রেট এত বেশি ছিল যে তা আয়ত্তের বাহিরে চলে যাচ্ছিল। কিন্তু ক্রিজে ছিলেন রহিত শর্মা ও ক্রুনাল পান্ডিয়া। এই দুইজন জ্বলে উঠলে যেকোন রান রেটই আয়ত্ব এসে যায়, তা সবারই জানা। তবু মুম্বাইয়ে ভাগ্য যে এই টুর্নামেন্টে বিপরিত কথা বলেছে বারবার। কিন্তু এবার তা হলো না। অনেকটা চার-ছক্কার ঝড় তুলে মুম্বাইকে জেতান এই দুই ভারতীয়। ৬ উইকেটে জয় পেয়ে টুর্নামেন্টে টিকে থাকলো মুম্বাই ইন্ডিয়ানস।

ম্যাচ সেরা হয়েছেন সুরিয়াকুমার যাদব। ৯ ম্যাচে ৬ পয়েন্ট নিয়ে পঞ্চম স্থানে মুম্বাই ইন্ডিয়ানস। আর ৮ ম্যাচে ১০ পয়েন্ট নিয়ে মুম্বাইয়ের ঠিক ওপরে অর্থাৎ চতুর্থ স্থানে কিংস ইলেভেন পাঞ্জাব।

আগামিকাল বাংলাদেশ সময় ৪টা ৩০ মিনিটে পুনের মহারাষ্ট্র ক্রিকেট স্টেডিয়ামে রয়েল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গলুরুর বিপক্ষে মাঠে নামবে চেন্নাই সুপার কিংস। দ্বিতীয় ম্যাচ বাংলাদেশ সময় ৮টা ৩০ মিনিটে। হায়দ্রাবাদের রাজিব গান্ধি স্টেডিয়ামে দিল্লি ডেয়ারডেভিলসের বিপক্ষ মাঠে নামবে সাকিবের সানরাইজার্স হায়দ্রাবাদ।

বাংলা ইনিশিয়েটরে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।