প্রচ্ছদ » খেলাধুলা » প্রথম দেখায় দিল্লির বিপক্ষে জয় তুলে নিল সাকিবের হায়দ্রাবাদ!

প্রথম দেখায় দিল্লির বিপক্ষে জয় তুলে নিল সাকিবের হায়দ্রাবাদ!

প্রকাশ : ৬ মে ২০১৮১:১২:২০ পূর্বাহ্ন

সাব্বির রায়হান অপি | বাংলা ইনিশিয়েটর

আইপিএল ২০১৮-তে আজই প্রথমবারের মত মুখোমুখি হয়েছে সানরাইজার্স হায়দ্রাবাদ ও দিল্লি ডেয়ারডেভিলস। হায়দ্রাবাদ যেখানে টেবিলের শীর্ষ স্থান ধরে রেখে ট্রফি জয়ের স্বপ্ন দেখছে, সেখানে টেবিলের নিচের দিকে থাকা দিল্লি নিজেদের হারিয়ে খুজছে। আজকের ম্যাচটা জেতা তাই হায়দ্রাবাদের চেয়ে দিল্লির জন্য বেশি গুরুত্বপূর্ন ছিল।

টসে জিতে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন দিল্লির অধিনায়ক শ্রেয়াস আইয়ার। ইনজুরি কাঁটিয়ে হায়দ্রাবাদের দলে ফিরেছেন আগের আসরের সফল বোলার ভুবনেশ্বর কুমার। প্রথম ওভারটা তাকেই দেন অধিনায়ক। ঐ ওভারে কুমার দিয়েছেন মাত্র ২ রান। প্রভাবটা পরেছে পরের ওভারে, রান না পেয়ে একটু ধৈর্য হারান পৃথিবী-ম্যাক্সওয়েল। সন্দিপ শর্মার বলে লং অন দিয়ে ছয় মারেন পৃথিবী পরের বলে ডিফেন্স করেন। বল সান্দিপের হাতে আর ম্যাক্সওয়েল দাগের বাইরে। রান আউট হয়ে ফেরেন ২ রান করে।

এরপর পৃথিবী আর শ্রেয়াস ঝড় তোলেন। সিদ্ধার্থের ষষ্ঠ ওভারে ২০ রানের ১৯ রান আসে পৃথিবীর ব্যাট থেকে। তাকে থামাতে আবারও সানরাইজার্সের হয়ে জ্বলে ওঠেন রাশিদ খান। রাশিদের বল সুইপ করতে গিয়ে থার্ড ম্যানে থাকা সিদ্ধার্থকে সহজ ক্যাচ দেন। ৬ চার ও ৩ ছক্কায় ৩৬ বলে ৬৫ রান করে ফেরেন এই তরুন। ১৬তম চালকের আসনে বসা শ্রেয়াসকে ফেরান সিদ্ধার্থ। লেন্থ বলটিকে উপরে উঠিয়ে মারলেও তা টাইমিংয়ে অভাবে তা ডিপ মিড উইকেটে থাকা শিখর ধাওয়ানের হাতে ধরা পরে। ৩৬ বলে ৪৪ রানর ইনিংস এখানেই শেষ। পরের ওভারের ১ম বলেই ভুল বোঝাবুঝিতে রান আউট হন ১রান করা নামান ঔঝা। ৩ বল পরেই রাশিদের বল বড় শট খেলতে গিয়ে এলবিডব্লিউ হন পান্ত। রিভিউ নিয়েও লাভ হয়নি, ১৮ রানের ইনিংস এখানেই শেষ। শেষে বিজয় শংকরের ১৩ বলে ২৩ রানের ক্যামিওতে ৫ উইকেটে ১৬৩ রানের সংগ্রহ পায় দিল্লি। ৪ ওভারে ৩৪ দিয়ে উইকেটশূন্য ছিলেন সাকিব। রাশিদ ২টি ও সিদ্ধার্থ ১টি উইকেট পেয়েছেন।

 

জবাবে ব্যাট করতে নামে জবাবে ব্যাট করতে নামেন অ্যালেক্স হেলস ও শিখর ধাওয়ান। ট্রেন্ট বোল্টের প্রথম ওভারে মাত্র ১ রান আসলেও পরের ওভার থেকে দারুন ব্যাটিং করে দুইজনই। আভেস খানেস ষষ্ঠ ওভারে ২৭ রান তোলেই এই দুই ওপেনার। ২টি নো বল দিয়ে ওভার শুরুর পরে ৪টি ছক্কা খান আভেস। ৩টি অ্যালেক্স, ১টি শিখর। দুইজনের জুটি ভাঙ্গে নবম ওভারে অমিত মিশ্রার বলে অ্যালেক্সের উইকেট ভেঙ্গে দিলে। ৩টি করে চার-ছক্কায় গড়া ৩১ বলে ৪৫ রানর ইনিংস এখানেই শেষ। এরপরে ১১তম ওভারে আর মিশ্রার আক্রমন। এবারও ওভারের শেষ বলে শিখরের উইকেট ভেঙ্গে দেন অমিত। ৩০ বলে ৩৩ করেছিলেন এই বাহাতি।

এরপক হায়দ্রাবাদকে বন্দরে পৌছানোর দায়িত্ব নেন অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসন নিজেই। তাকে সঙ্গ দেন মানিশ পান্ডে। ১৭ বলে ২১ করে মানিশ ফেরেন প্লাঙ্কেটের বলে এক্সট্রা কাভারে থাকা পৃথিবীকে ক্যাচ দিয়ে। বাকি কাজটা করতে মাঠে নামেন ইউসুফ পাঠান। শেষ ওভারে ১৪ রানের প্রয়োজন ছিল। প্রথম ৪ বলে ১টি করে চার-ছক্কায় ১৩ রান নেন ইউসুফ। চতুর্থ বলে সিঙ্গেল নিয়ে দিল্লির কফিনে শেষ পেরেক ঢুকেন অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসন। ৭ উইকেটের জয় নিয়ে টেবিলের শীর্ষে সানরাইজার্স হায়দ্রাবাদ। দারুন বোলিং পারফর্মেন্সে ম্যাচ সেরা হন রাশিদ খান।

আগামিকাল বাংলাদেশ সময় ৪টি ৩০ মিনিটে মুম্বাইয়ের ওয়ানখেরো স্টেডিয়ামে কলকাতা নাইট রাইডার্সের বিপক্ষে মাঠে নামবে মুস্তাফিজের মুম্বাই ইন্ডিয়ানস। আর দ্বিতীয় ম্যাচ, ৮টা ৩০ মিনিটে ইন্দোরের হলকার ক্রিকেট স্টেডিয়ামে রাজস্থান রয়েলসের বিপক্ষে মাঠে নামবে কিংল ইলেভেন পাঞ্জাব।

বাংলা ইনিশিয়েটরে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।