প্রচ্ছদ » খেলাধুলা » বদলে যাওয়া মুম্বাই এবার ১০২ রানের বিশাল জয় পেল!

বদলে যাওয়া মুম্বাই এবার ১০২ রানের বিশাল জয় পেল!

প্রকাশ : ১০ মে ২০১৮১২:৪০:৫৩ পূর্বাহ্ন

সাব্বির রায়হান অপি | বাংলা ইনিশিয়েটর

গেল বারের চ্যাম্পিয়ন মুম্বাই ইন্ডিয়ানসের এবারের আসরের শুরুটা ভালো ছিল না। একের পর এক ম্যাচ হেরে টেবিলের তলানিতে ছিল দলটি। বেশিরভাগ ম্যাচেই আশা জাগিয়ে হেরেছে শেষ সময়ে। টুর্নামেন্ট থেকে যখন প্রায় বাদ পরেই যাচ্ছিল, তখনই ঘুরে দাড়িয়েছে দলটি। প্লে-অফ খেলতে হলে এখন প্রতিটি ম্যাচই জিততে হবে মুস্তাফিজের দলকে। আর সেটাই যেন করে যেখাচ্ছে দলটি। টুর্নামেন্টের শক্তিশালী দলগুলোকে হারিয়ে, নিজেদের এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে সম্ভাবনার দিকে।

টসে জিতে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন কলকাতার অধিনায়ক দিনেশ কার্তিক। ব্যাটিংয়ে নেমে দলকে ভালো শুরু এনে দিয়েছিলেন সুরিয়াকুমার যাদব ও এভিন লুইস। কিন্তু দুজনের কেউই তা টেনে বড় করতে পারেননি। পিউস চাওলার বলে পুল করতে গিয়ে ব্যাট-প্যাড হয়ে শর্ট থার্ড ম্যানে থাকা ক্রিস লিনের হাতে ধরা পরেন ১৩ বলে ১৮ রান করে। অন্যপ্রান্তে থাকে সুরিয়াকুমার ৩২ বলে ৩৬ রান করে সেই পিউস চাওলার বলেই মিড উইকেটে থাকা রিংকু সিংকে ক্যাচ দেন। এরপর রোহিতকে সাথে নিয়ে ঝড় তোলেন ইশান কিশান। কুলদিপ যাদবের ১৪তম ওভারের শেষ ৪ বলে টানা ৪টি ছয় মারেন এই উইকেট-রক্ষক ব্যাটসম্যান। পরের ওভারে নারাইনের তৃতীয় বলেও ছক্কা, বিপত্তি ঘটে পরের বলেই। লেগ স্টাম্পে করা গুড লেংথের বলটিকে সুইপ করতে গিয়ে রবিন উথাপ্পার দুর্দান্ত ক্যাচের শিকার হন। ২১ বলে ৬২ রানের দুর্দান্ত ইনিংসে ৫টি চারের সাথে ৬টি ছক্কা মারেন এই ভারতীয়।

ইসানের বিদায়ের পর একটু ধীরে শুরু করেন হার্দিক। অন্যপ্রান্তে রোহিতও ছিলেন না স্বাচ্ছন্দে। তারই ফলস্বরুপ ১৮তম ওভারে টম কুর্রানের শেষ বলে বড় শট খেলতে গিয়ে লং অনের রিংকু সিংয়ের হাতে ধরা পরেন। ২ ছয়ে ১৩ বলে ১৯ রান করে অফ স্টাম্পের ফুল টস বলে ফেরেন হার্দিক। পরের ওভারের দ্বিতীয় বলেই ফেরেন অধিনায়ক রহিত শর্মাও। প্রসিধের অফ স্টাম্পের বাইরে করা গুড লেংথের বলটি রবিন উথাপ্পার হাতে তুলে দেন ৩১ বলে ৩৬ করা রহিত। ২০তম ওভারটা যেন দুই দলেরই ছিল। পিউস চাওলার প্রথম তিন বলে দুটি ছয় ও একটি চার মারেন বেন কাটিং। পরের বলটি অফ স্টাম্পে শর্ট বল ছিল, যা এন্ড্রে রাসেলের হাতে তুলে দিয়ে ৯ বলে ২৪ রানের ক্যামিও শেষ করেন বেন কাটিং। শেষ বলটিতে আবার ছক্কা পেটান ক্রুনাল পান্ডিয়া। শেষ ওভারে ২২ রান তুলে দলীয় ২১০ রানের সংগ্রহ পায় মুম্বাই ইন্ডিয়ানস।

২১১ রানের বিশাল লক্ষ জয় যেমন ব্যাটিংয়ের প্রয়োজন ছিলো তা করতে পারেননি কলকাতার ব্যাটসম্যানরা। ইনিংসের প্রথম বলে চার মেরে পরের বলেই ফেরেন নারাইন। মাঝে স্টাম্পে করা শর্ট লেংথের বলটি ক্রুনাল পান্ডিয়ার হাতে তুলে দেন ৪ রান করে। ক্রিস লিন ও রবিন উথাপ্পার সতর্ক ব্যাটিংয়ের চেষ্টাও কাজে আসেনি। চতুর্থ ওভারে ভুল বোঝাবুঝিতে ১৫ বলে ২১ রান করে রান আউট হন ক্রিস লিন। ২ ওভার পরেই ফেরেন উথাপ্পা। ১৩ বলে ১৪ রান করে মায়াঙ্ক মারকান্দের বলে ডিপ মিড উইকেটে থাকা সুরিয়াকুমারের তালুবন্ধি হয়ে ফেরেন তিনি। পরের ওভারেই হার্দিকের বলে মারকান্দেকে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন এন্ড্রে রাসেল।

এরপর যেন আসা-যাওয়ার মিছিল নামে। ১০ম ওভারে জোড়া আক্রমন করে মুম্বাই। প্রথম বলেই ডুমিনি-হার্দিকে সমন্বয়ে দিনেশ কার্তিক রান আউট হন। পরের বলে নিতিশ রানাকে ফেরান হার্দিক পান্ডিয়া। অফ স্টাম্পের বাইরে শর্ট বলটি ডিপ স্কয়ারে বেন কাটিংকে তুলে দেন ১৯ বলে ২১ রান করে। এরপর কেউ আর উল্লেখ যোগ্য পারফর্মেন্স করতে পারেননি। মুম্বাইয়ের জার্সিতে সবাই উজ্জল ছিলেন। দুই ভাই হার্দিক ও ক্রুনাল পান্ডিয়া নেন দুইটি করে উইকেট। মারকান্দে, বুমরা, ম্যাকলেনাগান ও বেন কাটিং পেয়েছেন একটি করে উইকেট। ২১০ রানের প্রায় অর্ধেক ১০৮ রানেই সব উইকেট হারায় কলকাতা নাইট রাইডার্স।

১০২ রানের বিশাল জয় পেলো মুম্বাই ইন্ডিয়ানস। সাথে কিছু ইতিহাসেও নিজের নাম লেখায় রহিত শর্মার দলটি। আইপিএলের ইতিহাসে কোন দলের বিরুদ্ধে সর্বোচ্চ জয় এখন মুম্বাই ইন্ডিয়ানসের (১৮/২৩)। এই জয়টি ছিল মুম্বাই ইন্ডিয়ানসের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ব্যাবধানে জয় (রানের হিসাবে)। আইপিএল ইতিহাসে কোন দলের বিরুদ্ধে একটানা সর্বোচ্চ জয়ের রেকর্ডও মুম্বাইয়ের। এই দুই দলে মাঝে হওয়া শেষ ৮টি ম্যাচের প্রতিটিই জিতেছে মুম্বাই ইন্ডিয়ানস। অন্যদিকে লজ্জার রেকর্ডে নাম উঠলো কলকাতার। রানের হিসাবে কলকাতা সবচেয়ে বেশি রানে পরাজয় ছিল এটি। দুর্দান্ত ব্যাটিংয়ে ম্যাচ সেরা হয়েছেন ইশান কিশান।

আগামিকাল বাংলাদেশ সময় ৮টা ৩০ মিনিটে দিল্লির ফিরোজ শাহ কোটলায় সানরাইজার্স হায়দ্রাবাদের বিপক্ষে মাঠে নামবে দিল্লি ডেয়ারডেভিলস।

বাংলা ইনিশিয়েটরে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।