প্রচ্ছদ » খেলাধুলা » ব্রাজিল কি পারবে ষষ্ঠ ট্রফি ঘরে তুলতে?

ব্রাজিল কি পারবে ষষ্ঠ ট্রফি ঘরে তুলতে?

প্রকাশ : ৬ জুলাই ২০১৮১২:০৯:৩৮ পূর্বাহ্ন

সাব্বির রায়হান অপি | বাংলা ইনিশিয়েটর

শুরুটা হোচট খেয়ে হলেও, টুর্নামেন্টটা বেশ ভালোই ছিল নেইমার-কুতিনহোদের জন্য। আর্জেন্টিনা, জার্মানি, স্পেনের মতো দেশগুলো যেখানে হোচট খেয়ে টুর্নামেন্ট থেকে বাদ পরেছে, সেখানে সুইজারল্যান্ডের সাথে হোচট খাওয়ার পর ঘুড়ে দাড়িয়েছে তিতের দল। নক-আউট বাধা অতিক্রম করে ট্রফি জয়ের স্বপ্ন দেখছে ব্রাজিল। কোয়াটার-ফাইনালে ব্রাজিলের প্রতিপক্ষ আত্মবিশ্বাসী বেলজিয়াম।

নক-আউট পর্ব হোক কিংবা গ্রুপ পর্ব। পুরো রাশিয়া বিশ্বকাপেই যা হবার কথা ছিল না তাই হয়েছে। আর যেটা হবার কথা ছিল সেটা দেখার সৌভাগ্য হয়নি ফুটবল বিশ্বের। কোয়ালিফায়ারের সময় থেকেই যেন অঘটনের শুরু। ইটালি-নেদারল্যান্ডসের মতো দেশগুলো টিকেটই পায়নি রাশিয়া বিশ্বকাপে খেলার। আসরের পর্দা নেমেছে, সেরার লড়াইয়ে নেমেছে ৩২ দল। কিন্তু এখানেও সেই অঘটন ঘটার গল্প। আগেরবারের চ্যাম্পিয়ন জার্মানি যেমন বিদায় নিয়েছে, তেমনি নক-আউটে বাদ পরেছে রানার্সআপ আর্জেন্টিনা। রোনালদোর পর্তুগাল কিংবা শক্তিশালী স্পেন, ভক্তদের হতাশ করে ইতোমধ্যেই টুর্নামেন্টের বাইরে চ্যাম্পিয়ন দলগুলো। তবে সেরার লড়াইয়ে এখনো টিকে আছে ৫ বারের বিশ্ব সেরা ব্রাজিল।

সুইজারল্যান্ডের সাথে ড্র করে বিশ্বকাপ শুরু করলেও সার্বিয়া ও কোষ্টারিকাকে হারিয়ে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়েই নক-আউটে পা দিয়েছে ব্রাজিল। সেখানে ম্যাক্সিকোকে ২-০ গোলে হারিয়ে কোয়াটার-ফাইনালে পা দিয়েছে ব্রাজিল। সেরাদের সেরা হবার মিশনে এখন বাধা আত্মবিশ্বাসী বেলজিয়াম। তবে অভিজ্ঞতা, আর তারকা ফুটবলারদের নিয়ে এই ম্যাচেও ফেবারিট ব্রাজিল।

কোচ তিতেও তাই পরিকল্পনা আর কৌশল নিয়ে কোন কমতি রাখতে চান না। আক্রমন ও রক্ষনে সমানতালে সামঞ্জস্য রেখে ছাত্রদের সেরাটা বেড় করে আনতে চান তিতে। পাস করে খেলা, যোগাযোগ ঠিক রেখে ফাউল এড়িয়ে ভালো ফুটবল খেলতে চান তিনি। উংস নিয়ে আক্রমন করেই সাফল্য পেতে চান ব্রাজিলিয়ান কোচ। এদিকে খেলাধুলা বিষয়ক পত্রিকা কোচে পরিকল্পনা, আগের ম্যাচ এবং খেলোয়ারদের পারফর্মেন্স বিবেচনা করে ব্রাজিলের প্রথম একাদশও প্রকাশ করেছে। সুইজারল্যান্ডের ম্যাচ বাদে সবগুলো ম্যাচেই ক্লিন শিট অ্যালিস্সনের। তাই তিতের একাদশে গোল-রক্ষক হিসাবে অটোমেটিক চয়েস অ্যালিস্সন। ফাগনার, থিয়াগো সিলভা, মার্সেলোদের সাথে মিরান্দাকেই ভরসা করছেন তিতে। মাঝ মাঠে পাউলিনহো আর কুতিনহো দুজনই দুর্দান্ত ফর্মে গোল করে দলকে জয় এনেও দিয়েছেন দুজনই। সাথে থাকতে পারেন ফার্নানন্দিনহো। আক্রমনে নেইমারের সাথে জেসুসকেই দেখতে চাইবে ব্রাজিলিয়ান ভক্তরা।

ব্রাজিলের সম্ভাব্য প্রথম একাদশ:
অ্যালিস্সন, ফাগনার, থিয়াগো সিলভা, মিরান্দা, মার্সেলো, ফার্নানন্দিনহো, পাউলিনহো, কুতিনহো, নেইমার, জেসুস।

বেলজিয়ামের সাথে এর আগে ১টি ম্যাচই খেলেছে ব্রাজিল। ২-০ গোলে সেই ম্যাচে জয় পেয়েছিল ব্রাজিল। তাছাড়া কোয়াটার-ফাইনালের অভিজ্ঞতার দিক দিয়েও অনেকটাই এগিয়ে ব্রাজিল। তবে বেলজিয়ামকে হারালে ব্রাজিলের প্রতিপক্ষ হতে পারে ফ্রান্স। উরুগুয়ে হলে যদিও কিছুটা সহজ হতো, কিন্তু ফ্রান্সের মুখোমুখি হলে বেশ কঠিন পরিক্ষা দিতে হবে নেইমারদের। মার্সেলো-সিলভাদের কঠিন রক্ষনকে মুখোমুখি হতে হবে এমবাপ্পে, গ্রুজমান, ডেম্বেলেদের মতো কঠিন আক্রমনের। আবার উরুগুয়েতে সুয়ারেজ-কাভানিরাও কঠিন প্রতিযোগিতা দিতে প্রস্তুত।

তবে একবার ফাইনালে চলে যেতে পারলে শেষ লড়াইটা কিছুটা সহজই হবে ব্রাজিলের জন্য। কেননা ক্রোয়েশিয়া, ইংল্যান্ড, সুইডেন কিংবা রাশিয়ার যেই প্রতিপক্ষ হোক না কেন, বড় ম্যাচ খেলার অভিজ্ঞতায় অনেকটাই এগিয়ে থাকবে তিতের ব্রাজিল।

বিশ্বকাপ ফুটবলে সবচেয়ে সফল এই দলটির সাফল্য মুকুটে কি আরেকটি পালক যোগ করতে পারবে নেইমার-কুতিনহোরা? সময়ই দিতে পারে এই প্রশ্নের উত্তর।

বাংলা ইনিশিয়েটরে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।